আইনের তোয়াক্কা না করেই চাটমোহরে চলছে ইটভাটা

নিজস্ব প্রতিবেদক, চাটমোহর : পরিবেশগত ছাড়পত্র ও আইনের তোয়াক্কা না করেই পাবনার চাটমোহর উপজেলার বিভিন্ন স্থানে চলছে ১১টি ইটভাটা। সম্প্রতি জেলা প্রশাসন দুটি ইটইটভাটাকে জরিমানা ও দুটি ইটভাটা ভেঙে দিয়েছে। কিন্তু সেগুলো আগের মতোই চলছে। পরিবেশ দূষিত হচ্ছে।

জেলা প্রশাসন ও পরিবেশ অদিপ্তরের অভিযান কোন কাজে আসছে না। ইটভাটা মালিকরা মানছে না ইট তৈরি ও ভাটা স্থাপন আইন। তারা নিজেদের ইচ্ছেমতো আবাসিক,কৃষি জমি ও পরিবেশ সংকটাপন্ন এলাকায় ইটভাটা স্থাপন করেছে। আর এসব ইটভাটায় অবাধে পোড়ানো হচ্ছে মূল্যবান বনজ ও ফলদ গাছ। ভাটার ধূলা,কালো ধোঁয়া ও আগুনের তাপে ধ্বংস হচ্ছে নিকটবর্তী এলাকার সবুজ মাঠ,বনজ সম্পাদ ও ফলদ গাছ। এসকল ইটভাটার কোন প্রকার অনুমোদন নেই। নেই পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র কিংবা কৃষি বিভাগের প্রত্যায়নপত্র। এসকল ভাটা মালিকদের খুঁটির জোর কোথায়-এ প্রশ্ন সচেতন মহলের।

চাটমোহর উপজেলার ১২টি ইটভাটা রয়েছে। এগুলো হলো মূলগ্রাম ইউনিয়নের মহেষপুর এলাকার এ এ এ ব্রিক্স,এই ইউনিয়নে কে বি এস বিক্স, গুনাইগাছা ইউনিয়নের গুনাইগাছায় ও হরিপুর ইউনিয়নের ধুলাউড়িতে সিটিবি ব্রিক্স, ছাইকোলায় বি বি এফ ব্রিক্স,ছাইকোলায় আর এ এন ব্রিক্স,ডিবিগ্রাম ইউনিয়নের কামালপুরে এ কে বি বিক্স,বিলচলন ইউনিয়নের বওশা ঘাটের আর বি ই বিক্স,মহাজেরপাড়ার হাজী বিক্স,বওশা খেয়াঘাটের ডি এস এ বিক্স,হরিপুরে মল্লিক বিক্স এবং হরিপুরের এ আর টি বিক্স। এমধ্যে এ এ এ বিক্স-এর ট্রেড লাইসেন্স,পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমোদন, বিএসটিআই-এর অুমোদন থাকলেও জেলা প্রশাসনের লাইসেন্স নেই।

অন্যগুলোর ট্রেড লাইসেন্স ছাড়া আর কিছুই নেই। উপজেলার গুনাইগাছা ও ধুলাউড়িতে একই মালিকের একই নামে (সিটিবি) দুটি ইটভাটা থাকলেও তাদের কোন প্রকার বৈধতা নেই। ইটভাটা দুটি ফসলী জমিতে স্থাপন করা হয়েছে। কোন প্রকার আইন কানুনের তোয়াক্কা এরা করছে না। পরিবেশ মারাত্মকভাবে দূষিত হচ্ছে। একই অবস্থা কামালপুর, ছাইকোলা, হরিপুরের ইটভাটাগুলোর।

চাটমোহর উপজেলার অবৈধ ইটভাটায় দিনরাত অবাধে কাঠ পোড়ানো হচ্ছে। ফসলী জমির মাঝখানে স্থান করা হয়েছে এগুলো। কোন প্রকার নিয়মনীতিই মানা হচ্ছে না। নেই কোন প্রকার অনুমোদন। ইটভাটায় প্রতিদিন শত শত মণ কাঠ পোড়ানো হচ্ছে। ধোঁয়ার কারণে মরে যাচ্ছে গাছপালা। পরিবেশ হচ্ছে বিপন্ন। ইতোপূর্বে সিটিবি,কেবিএস,এ কে বি বিক্স ইটভাটায় ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান চালিয়ে জরিমানাও করেছে। কিন্তু তাদের কর্মকান্ড থেমে নেই।

এ ব্যাপারে পাবনা জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ বলেছেন, অবৈধ ইটভাটা চালানোর সুযোগ নেই। অবৈধ ইটভাটার বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *