আটঘরিয়ায় আলোর পথ দেখাচ্ছে ‘তথ্য আপা’

নিজস্ব প্রতিবেদক : পাবনার আটঘরিয়ায় আলোর পথ দেখাচ্ছে ‘তথ্য আপা’। গ্রামীণ নারীদের স্বাস্থ্যগত সমস্যা, বাল্যবিবাহ, ফতোয়া, নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতা, চাকরি সংক্রান্ত তথ্য, আইনগত সমস্যা এবং ডিজিটাল নানা সেবা দিয়ে সচেতনতা সৃষ্টি ও সমাজের পিছিয়ে পড়া নারীদের স্বনির্ভর হতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে সরকারের ‘তথ্য আপা ’ প্রকল্প।

জাতীয় মহিলা সংস্থা কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন তৃণমূল পর্যায়ে নারীদের এগিয়ে নিতে আলোর পথ দেখাচ্ছেন ‘তথ্য আপা’। তথ্য কেন্দ্রে নারীদের সমস্যা চিহ্নিত করে, প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবা ও পাশাপাশি বিভিন্ন বিষয়ে নারীদের দক্ষ করে গড়ে তুলতে কাজ করছে তথ্য আপা। তথ্য কেন্দ্রে ছাড়াও তথ্য আপারা বাড়িতে বাড়িতে গিয়ে ও গ্রামের দরিদ্র নারীদের তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক বিভিন্ন সেবা প্রদান করে আসছেন। এছাড়াও তথ্য আপারা প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়ে উঠান বৈঠক করে নারীদের বিভিন্ন বিষয়ে সচেতন করে তুলছেন। এরই মধ্যে এই তথ্য কেন্দ্রটি অসহায় ও সুবিধাবঞ্চিত নারীদের কাছে ভরসাস্থল হয়ে উঠছে।

মঙ্গলবার (২৯ মার্চ) সেই ধারাবাহিকতায় স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে তথ্যকেন্দ্র আটঘরিয়া উপজেলা পরিষদ হল রুমে একটি ‘বিশেষ উঠান বৈঠকে’র আয়োজন করে।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আরিফুজ্জামান সভাপতিত্বে এসময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন আটঘরিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান জনাব তানভীর ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা ভাইচ চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান, বক্তব্য দেন বীর মুক্তিযোদ্ধা জহুরুল হক, আটঘরিয়া মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান পপি রানী সাহা। উপস্থিত ছিলেন আটঘরিয়া প্রেসক্লাবের সভাপতি খাইরুল ইসলাম বাসিদ প্রমুখ। অনুষ্ঠানের শুরুতেই স্বাগত বক্তব্যে আটঘরিয়া তথ্যসেবা কর্মকর্তা সুলতানা সানজিদা তুলি। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা রাজু আহম্মেদ।

উপজেলা চেয়ারম্যান তানভীর ইসলাম বলেন, গ্রামীণ সুবিধাবঞ্চিত ও পিছিয়ে পড়া নারীর দৈনন্দিন সমস্যা সমাধানের কাজ করছে। এ প্রকল্পের আওতায় নারীদের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে সহযোগিতা করা হচ্ছে। এটি নারীর ক্ষমতাকে আরো বেগমান করবে।

তথ্যসেবা কর্মকর্তা তথ্য সুলতানা সানজিদা তুলি তার স্বাগত বক্তব্যে বলেন, যোগাযোগ প্রযুক্তির মাধ্যমে গ্রামের সুবিধাবঞ্চিত মহিলাদের ক্ষমতায়ন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সারাদেশে ৪৯২ টি তথ্যকেন্দ্র কাজ করে যাচ্ছে। তথ্যকেন্দ্রগুলো সুবিধাবঞ্চিত মহিলাদের দোরগোড়ায় প্রতি মাসে ৪ টি উঠান বৈঠক আয়োজন করে থাকে। উঠান বৈঠকে তাদেরকে তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে শহরের আদলে আধুনিক, নিরাপদ, উন্নত জীবনযাপনে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।

বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় বীর মুক্তিযোদ্ধারা মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে আলোকপাত করেন। বক্তারা বলেন, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন জাতির জন্য গৌরবের।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *