আটঘরিয়া উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যন পদে জনপ্রিয়তার শীর্ষে তানভীর

নিজস্ব প্রতিবেদক : আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সারা দেশের ন্যায় আগামি ১৮ মার্চ পাবনার আটঘরিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আর এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দিন-রাত ভোটারদের দরজায় দরজায় যাচ্ছেন প্রার্থীরা, দিচ্ছেন নানা উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি। প্রার্থীদের দৌড়ঝাপেরও যেন কমতি নেই।
উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন নৌকা প্রতীক থাকলেও আ.লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র চেয়ারম্যন প্রার্থী রয়েছেন মোটরসাইকেল ও আনারস প্রতীক নিয়ে। তাই প্রার্থীদের নির্বাচনী প্রচারণায় সাধারণ ভোটাররাও কষে নিচ্ছেন নানা প্রকার হিসেব নিকাশ।
গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জামায়াতের প্রার্থী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেও জনগনের তেমন কোন উন্নয়ন বা সেবা করতে পারেননি। এ কারনেই এই উপজেলায় ভোটার ও সাধারণ জনগণ চেয়ারম্যান পদে ব্যক্তি ইমেজকেই বেশী প্রাধান্য দিচ্ছেন।
চেয়ারম্যন পদে আ.লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোবারক হোসেনের বিপরিতে আ.লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা আটঘরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র শহিদুল ইসলাম রতনের পুত্র তানভীর ইসলামকেই এগিয়ে রাখছেন সাধারণ জনগণ। কারণ হিসেবে জানা গেছে, এই তরুণ নেতার সঙ্গে রয়েছেন পৌর মেয়র, ৯টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলরগণ এবং উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নের তিন তিনটি চেয়ারম্যান ও মেম্বরসহ তৃণমূলের আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, সেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগসহ আওয়ামী লীগের বিভিন্নস্তরের নেতাকর্মীবৃন্দ।
আর আওয়ামীলীগের তৃণমূল নেতারা তানভীর ইসলামের সাথে থাকায় নৌকা প্রতীকের প্রার্থী পড়েছেন বেকায়দায়।
অন্যদিকে আরেক বিন্দ্রোহী প্রার্থী আনারস প্রতীক নিয়ে নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন ইশারত আলী। তার সঙ্গে রয়েছেন ৫টি ইউনিয়নের একমাত্র মাজপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল গফুর মিয়া ফলে আনারস প্রতীকের প্রার্থী ইশারত আলী তেমন সুবিধা করতে পারছেন না বলে জানা গেছে।
চেয়ারম্যান প্রার্থী তানভীর ইসলাম বলেন, এই নির্বাচনে মোটরসাইকেল প্রতীকে গণজোয়ার সৃষ্ঠি হয়েছে। তিনি দাবী করেন দলমত নির্বিশেষে তাকে ভোট দেবেন জনগণ।
আটঘরিয়া উপজেলায় এবার চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৯জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোট ৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
নির্বাচন অফিস সূত্র জানায়, আটঘরিয়া উপজেলার ১টি পৌরসভা ও ৫টি ইউনিয়নে মোট ভোটার রয়েছেন ১ লাখ ১৯ হাজার ১৬জন।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *