আটলান্টায় কৃষ্ণাঙ্গের ওপর পুলিশের গুলিবর্ষণ ‘হত্যাকান্ড

বিদেশ : যুক্তরাষ্ট্রের আটলান্টায় রেইশার্ড ব্রুকসের মৃত্যু পেছন দিকে লাগা গুলির আঘাতে হয়েছে এবং ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে ঘটনাটিকে ‘হত্যাকা-’ বলা হয়েছে। শুক্রবার রাতে নগরীর একটি ফাস্ট ফুড রেস্তোরাঁর কাছে শ্বেতাঙ্গ পুলিশ কর্মকর্তার গুলিতে ২৭ বছর বয়সী কৃষ্ণাঙ্গ যুবক ব্রুকস নিহত হন। রোববার ব্রুকসের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়। এই তদন্ত প্রতিবেদনে আগ্নেয়াস্ত্রের দুটি গুলিতে হওয়া ক্ষত থেকে রক্তপাত ও দেহের ভেতরে হওয়া জখমের কারণে ব্রুকসের মৃত্যু হয় বলে জানানো হয়েছে।

যেভাবে ব্রুকসের মৃত্যু হয়েছে তা হত্যাকা-, ফুলটন কাউন্টি মেডিকেল এক্সামিনারের দপ্তর থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে এমনটি বলা হয়েছে বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে। ব্রুকসের মৃত্যুতে আটলান্টায় ফের বর্ণবাদ ও পুলিশি বর্বরতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ শুরু হয়েছে। এর আগে ২৫ মে মিনিয়াপোলিসে পুলিশ হেফাজতে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে প্রতিবাদের ঝড় বয়ে যায়, পরে তা বর্ণবাদ ও পুলিশি নির্যাতন বিরোধী প্রতিবাদ হিসেবে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ে। আটলান্টায় ফাস্ট ফুড চেইনশপ ওয়েন্ডির একটি রেস্তোরাঁর সামনে পুলিশের গুলিতে ব্রুকসের মৃত্যু হয়।

তাদের রেস্তোরাঁর সামনের রাস্তায় কেউ একজন গাড়িতে ঘুমিয়ে পড়েছে, ওয়েন্ডির এক কর্মী ফোনে কর্তৃপক্ষকে এমনটি জানানোর পর পুলিশ সেখানে যায়। পুলিশ কর্মকর্তার শরীরে লাগানো ক্যামেরা ও একটি নজরদারি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায়, প্রথমে বন্ধুত্বপূর্ণভাবেই তারা কথাবার্তা বলছিলেন, অ্যালকোহল (অথবা মাদক) পরীক্ষার সময় ব্রুকস সহযোগিতা করেন এবং তার কন্যার জন্মদিন নিয়ে কথাবার্তা বলেন। কিন্তু পুলিশ কর্মকর্তা যখন ব্রুকসকে গ্রেপ্তার করতে যান, তখন ব্রুকস তার সঙ্গে ও ঘটনাস্থলে থাকা আরেকজন পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে ধস্তাধ্বস্তিতে জড়িয়ে পড়েন।

একপর্যায়ে মুক্ত হয়ে গাড়ি পার্কিংয়ের স্থান দিয়ে দৌঁড় দেন, এ সময় তার হাতে পুলিশের একটি টেইজার গান ছিল বলে মনে হয়েছে। রেস্তোরাঁর সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, দৌঁড়ানো অবস্থায়ই ব্রুকস পেছন দিকে ঘুরে তার পেছনে আসা পুলিশ কর্মকর্তার দিকে টেইজার গান তাগ করছেন আর ওই সময় দুই পুলিশের মধ্যে কোনো একজন গুলি করলে ব্রুকস সেখানেই পড়ে যান। পরে হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। “ব্রুকসের সঙ্গে ঘটা এই ঘটনাটির ভিডিও দেখে আমার মন ভেঙে গেছে।

এখানে আক্রমণাত্মক কিছু ছিল না,” সিএনএনকে বলেছেন আটলান্টার মেয়র কেইশা লান্স বটমস। গুলিবর্ষণের এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আটলান্টার পুলিশ প্রধান এরিকা শিল্ডস পদত্যাগ করেছেন। সন্দেহভাজন যে পুলিশ কর্মকর্তা ব্রুকসকে গুলি করেছেন তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে। ঘটনার সময় উপস্থিত অপর পুলিশ কর্মকর্তাকে বাধ্যতামূলক ছুটি দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে আটলান্টার রাস্তায় নেমে আসা প্রতিবাদকারীরা দায়ী পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি অভিযোগ আনার দাবি তুলেছে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *