ইউপি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী পরিবর্তন প্রয়াত পিতাকে নিয়ে অপপ্রচারের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন 

পাবনা প্রতিনিধি : ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে সামনে রেখে উদ্দেশ্য প্রণোদীতভাবে প্রয়াত পিতার নামে অপপ্রচারের প্রতিবাদে পরিবারের পক্ষে সংবাদ সম্মেলন করেছেন নাজিরগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও আসন্ন ইউপি নির্বাচানে নৌকার মনোনীত প্রার্থী ও মশিউর রহমান।

সোমবার দুপুরে সুজানগর উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সুজানগর-২ আসনের সাংসদ ও জেলা আওয়ামীলীগের সাগঠনিক সম্পাদক আহম্মেদ ফিরোজ কবির, সুজানগর উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক শাহীনুজ্জামান শাহীন, পৌর মেয়র রেজাউল ইসলাম রেজা, বীর মুক্তিযোদ্ধা সামসুল আলমসহ সংশ্লিষ্ঠ ইউনিয়নের নেত্রীবৃন্দসহ উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী প্রমুখ।

সংবাদ সম্মলনে ইউপি চেয়ারম্যান মশিউর রহমান বলেন, সম্প্রতি সারা দেশে ইউনিয়ন পর্যায়ে প্রথম ধাপের নির্বাচনের জন্য সময় নির্ধারন করা হয়েছে। এই নির্বাচনে দলের মনোনায়ন প্রত্যাশী অনেকেই আগ্রহ প্রকাশ করে দলের মনোনায় পেতে আবেদন করেন। অপ্রত্যাশিতভাবে হলেও দল এবারের নির্বাচনে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুস সাত্তারকে  প্রথম পর্যায়ে নাজিরগঞ্জ ইউপি নির্বাচনে প্রার্থী ঘোষনা করা হয়। এই প্রার্থীতা ঘোষণার পরে আমি দলের কাছে আবেদন করেছিলান। আমি এই ইউনিয়নের দুইবারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান। আমার প্রার্থীতা কেন বাতিল করা হলো সেটি জানতে চেয়েছিলাম। দলের নীতি নির্ধারকেরা আগেরজনকে বাদ দিযে পুণরায় বিষয়টি বিবেচনা করে আমাকেই আবার নৌকা প্রতিক দিয়েছেন এবারের নির্বাচনের জন্য।

তিনি বলেন, একটি চক্র দলের অভ্যান্তরে থেকে কৌশল করে আমার ও আমার পারিবারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। তারা গণমাধ্যমের কাছে বলেছেন, আমার পিতা শান্তি কমিটির সদস্য ছিলেন। আর এই ষড়যন্ত্রের মূল কলকাঠি নাড়ছেন কামরুজ্জান উজ্জল নামের কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের উপকমিটির সদস্য সহ তার সহযোগীরা। তিনি ছাড়া তার পরিবারের লোকজন মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের লোক নন। আর তারাই আজ আমার ও আমার প্রয়াত পিতার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছেন। আমার পিতা ১৯৭২ সালে সংশ্লিষ্ঠ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ছিলেন। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে বর্তমান সংসদ সদস্য তার পিতা প্রয়াত সংসদ সদস্য আহম্মেদ তফিজ উদ্দিনের সাথে নির্বাচন করেছেন। আমার পিতার নামে যে অভিযোগ করে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে তার নিন্দা প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একইসাথে এই ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে দলীয়ভাবে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য আবেদন করছি। যদি দলীয় ভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ না করা হয় তবে আমি আইনগতভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করবো বলে জানান তিনি।

অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে আনিত অভিযোগকারী রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ও বর্তমানে কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের উপকমিটির সদস্য কামরুজ্জান উজ্জল বলেন, যারা আমার ও আমার পরিবারের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে অভিযোগ করেছেন,  তারা মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে। আমি আমার মত এলাকায় রাজনৈতিক ও সমাজিক কর্মকান্ড করে থাকি। আমার রাজনৈতিক পরিচয় জেলা আওয়ামীলীগ উপজেলা আওয়ামীগের সকলেই অবগত আছেন। আমি কারো প্রতিপক্ষ না। আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে শেখ হাসিনার নেত্রীতে রাজনীতি করি।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *