ইউপি নির্বাচনে সুজানগর ৮টিতে নৌকা ও ২টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী

পাবনা প্রতিনিধি : দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে পাবনার সুজানগর উপজেলার দশটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আটটিতেই আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী ও দুইজন বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) প্রার্থী বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (১১ নভেম্বর) রাত সাড়ে দশটার দিকে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ফাতেমা খাতুন তার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করেন।

ঘোষিত ফলাফল অনুযায়ী হাটখালী ইউনিয়নে স্বতন্ত্রী প্রার্থী আনারস প্রতিকের ফিরোজ আহম্মেদ খান ৭৫৫৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) ঘোড়া প্রতিকের আজাহার আলী শেখ পেয়েছেন ৬৫৫৫ ভোট। আর নৌকা প্রতিকের প্রার্থী আব্দুর রউফ তৃতীয় স্থানে থেকে পেয়েছেন ৩ হাজার ৩৫৭ ভোট।

সাতবাড়িয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোটরসাইকেল প্রতিকের আবুল হোসেন ৯০৫৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী নৌকা প্রতিকের প্রার্থী এস এম শামসুল আলম পেয়েছেন ৬৫৭৬ ভোট।

মানিকহাট ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী শফিউল ইসলাম ১৪৩৬৮ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) আনারস প্রতিকের আব্বাস আলী মল্লিক পেয়েছেন ৪৬৯০ ভোট।

তাঁতীবন্দ ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী আব্দুল মতিন মৃধা ৬৪৮২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী স্বতন্ত্র মোটরসাইকেল প্রতিকের আব্দুর রউফ পেয়েছেন ৫০৫০ ভোট।

ভায়না ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী আমিন উদ্দিন ৬৫৫৫ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ওমর ফারুক পেয়েছেন ৪২২৯ ভোট।

দুলাই ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম ৭০৬৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আপন ভাতিজা সাইদুর রহমান সাইদ পেয়েছেন ৬৪৮৩ ভোট।

সাগরকান্দি ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী শাহিন চৌধুরী ১৩৫৪৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আনারস প্রতিকের প্রার্থী আলহাজ্ব তৈয়ব আলী শেখ পেয়েছেন ৩৫২৮ ভোট।

নাজিরগঞ্জ ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী মশিউর রহমান ৫৯৪০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মোটর সাইকেল প্রতিকের নুর মোহাম্মদ পেয়েছেন ২৯৩৭ ভোট।

আহম্মদপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী কামাল হোসেন মিয়া ৭৫৫০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আপন ভাতিজা আনারস প্রতিকের প্রার্থী মাহবুবুর রহমান হিরা পেয়েছেন ৬০১০ ভোট।

রানীনগর ইউনিয়নে নৌকা প্রতিকের প্রার্থী এইচ এম পিযুষ ৭৩৮৬ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ইসলামী আন্দোলনের হাতপাখা প্রতিকের প্রার্থী সৈয়দ আলী বিশ্বাস পেয়েছেন ২৪৪৯ ভোট।

সুজানগর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ফাতেমা খাতুন বলেন, দশটি ইউনিয়নের ৮টিতে নৌকার প্রার্থী ও বাকি দুটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয় লাভ করেছে। প্রাথমিকভাবে তাদেরকে বেসরকারিভাবে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, চেয়ারম্যান পদে ৩৬ জন, সাধারণ ইউপি সদস্য পদে ৩৫৫ জন, সংরক্ষিত ইউপি সদস্য পদে ৯৩ জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন। মোট ভোটার ছিল ২ লাখ ৩ হাজার ৪৯৮ জন। ৯৩টি ভোট কেন্দ্রের ৫০৪টি কক্ষে ভোটগ্রহণ করা হয়।

Spread the love