উন্নয়নের জোয়ারে ভাসছে আটঘরিয়া পৌরসভা

বিশেষ প্রতিবেদক : বর্তমান মেয়র শহিদুল ইসলাম রতন ক্ষমতায় আসার পর উন্নয়নের জোয়ারে ভাসছে পাবনার আটঘরিয়া পৌরসভা। তিনি দায়িত্ব গ্রহণের পর পৌর এলাকার ৯টি ওয়ার্ডের বিভিন্ন রাস্তা, লাইটসহ ড্রেন নির্মাণ, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী, বিধবা, মার্তৃত্বকালীন ভাতা প্রদানসহ করোনাকালিক সময়ে সাধারণ মানুষের পাশে থেকে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করে চলেছেন এই পৌরসভায়। ২০১৬ নির্বাচনে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় মেয়র নির্বাচিত হন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম রতন।

প্রায় ২১ হাজার জনগণের বসবাসরত এই পৌরসর্ভা। পৌরসভাটি ছিল একেবারেই অনুন্নত। শহিদুল ইসলাম রতন মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর নির্মাণ করেছেন কাঁচা রাস্তা থেকে পাকা রাস্তা, এলইডি ২৮টি লাইটের বিপরীতে লাইট স্থাপন করেছেন ৪শ টি, পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থার বালাই ছিলো না। ইতোমধ্যে পানি নিষ্কাশনের জন্য ড্রেনসহ আরো প্রায় সাড়ে ৬ কোটি টাকার ঢালাই রাস্তা ও ড্রেন নির্মাণ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে। দিয়েছেন বয়স্ক, প্রতিবন্ধি, বিধবাসহ মার্তৃত্বকালীন ভাতা। চলমান উন্নয়নমূলক বিভিন্ন কাজ, এলাকা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজগুলো তিনি নিজেই তদারকি করে চলেছেন প্রতিনিয়ত।

এছাড়াও সরকারী সহায়তা ও ব্যক্তিগত উদ্যোগে দেশে গত বছর প্রথম করোনা শনাক্ত হওয়ার পর পরই ভয়কে জয় করে তিনি নিজেই জনসচেতনতা বাড়ানোর জন্য করেছেন মাইকিং, মাস্ক ও স্যানিটাইজার বিতরণসহ বাড়ি বাড়ি গিয়ে দুস্থ অসহায়দের মাঝে পৌঁছে দিয়েছেন ত্রাণ সামগ্রী। যা মানবিকতার অন্য নিদর্শন। “খ” শ্রেণীর এই পৌরসভাকে তিনি স্বপ্ন দেখেন প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার। সেটি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন মেয়র শহিদুল ইসলাম রতন।
সরেজমিনে ঘুরে পৌর এলাকার ৭নং ওয়ার্ডের দেবোত্তর মহল্লার ইসমাঈল হোসেন, আব্দুল আলিমসহ বেশ কয়েকজন এলাকাবাসী জানান, বর্তমান মেয়র আমাদের যে ড্রেন ও রাস্তা করে দিচ্ছে তাতে আমাদের অনেক উপকার হবে। এই বর্ষা মৌসুমে একটু পানি হলে এলাকাটা প্লাবিত হয়ে থাকতো। মানুষের বাড়ি ঘর পানির নিচে থাকতো। ড্রেন ও রাস্তা হচ্ছে আমাদের অনেক সুবিধা হবে।

৮নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মো: ইদ্দ্রস আলী বলেন, আমাদের এলাকাটি অবহলিত ছিলো। রাস্তা-ঘাট ছিলো না। এখন মেয়র শহিদুল ইসলাম রতন আমাদের জন্য এই রাস্তাাগুলো করে দিচ্ছেন। রাস্তাাগুলো হওয়ার কারণে আমরা অনেক উপকৃত হবো।

আটঘরিয়া পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম রতন পাবনা রিপোর্ট টোয়েন্টিফোর ডট কমকে বলেন, আমি মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণের পর পৌর এলাকার ৯টি ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকার রাস্তা, লাইটসহ ড্রেন নির্মাণ, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী, বিধবা, মার্তৃত্বকালীন ভাতা প্রদানসহ করোনাকালীক সময়ে সাধারণ মানুষের পাশে থেকে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ চলমান রয়েছে।

মেয়র শহিদুল ইসলাম রতন বলেন, করোনাকালীন সময় আমরা খুবই দক্ষতার সাথে দিনগুলো পার করছি। আটঘরিয়া পৌরসভাসহ পুরো উপজেলায় সর্বাধিক সর্তকতার সাথে এই সময়টি মোকাবেলা করছি। মানুষকে সচেতনতা সৃষ্টি, মাস্ক, ত্রাণ সামগ্রী ও সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণসহ মানুষের মাঝে আমরা ত্রাণ পৌছিয়ে দিয়েছি। তার পাশাপাশি সরকারি, বেসরকারিসহ ব্যক্তিগত উদ্যোগে এবং এলাকার বিশিষ্ট জনের সহায়তার চাল, ডাল, তেল, সাবান, খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছি। তিনি বলেন, শীতকালীন সময়ে আমরা শীর্তাতদের মাঝে কম্বলসহ বিভিন্ন সহায়তা প্রদান করে আসছি।

মাদক নির্মূল ও বেকারত্বের হার কমাতে তার অবদান কতটুকু? প্রশ্নের জবাবে মেয়র শহিদুল ইসলাম রতন বলেন, আমার এলাকায় মাদকসেবীদের হার শতকরা ৫ শতাংশে নামিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি। মাদক নির্মূল কার্যক্রম এখনও অব্যাহত আছে। এছাড়াও বেকারত্বের হার কমানোর জন্য কাজ করে যাচ্ছি সর্বক্ষণ। বিভিন্ন প্রশিক্ষণের আওতায় নিয়ে আসছি তাদের।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *