তাপে পুড়ছে অস্ট্রেলিয়ার পাঁচ প্রদেশ

ডেস্ক: বড়দিন পরবর্তী সময়ে অস্ট্রেলিয়ায় তীব্র তাপপ্রবাহ অব্যাহত রয়েছে। দেশটির কোনও কোনও অঞ্চলের গড় তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে ১০ থেকে ১৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত বেশি চলছে। পশ্চিমাঞ্চলে প্রায় রেকর্ড ভাঙা ৪৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। পশ্চিম অস্ট্রেলিয়া ছাড়াও তীব্র তাপপ্রবাহ চলছে সাউথ ওয়েলস, ভিক্টোরিয়া, নিউ সাউথ ওয়েলস এবং কুইনসল্যান্ডের মধ্যাঞ্চলে। দেশজুড়ে জারি করা হয়েছে অগ্নি দুর্ঘটনা, স্বাস্থ্য ঝুঁকি ও বাতাস দূষণ সতর্কতা। আবহাওয়া বিভাগের সর্বশেষ পূর্বাভাস অনুযায়ী এই তাপপ্রবাহ কবে শেষ হবে তার কোনও ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি। ১৯৬০ সালে অস্ট্রেলিয়ার ওদনাদাত্তা বিমানবন্দরে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৫০ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। আর গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার মার্বেল বার ও পান্নাওনিকা এলাকায় ৪৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার পূর্বাভাস দেয় দেশটির আবহাওয়া বিভাগ। সকাল আটটা ৪০ মিনিটেই মার্বেল বার এলাকার তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৪৩ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গত বুধবার অস্ট্রেলিয়ার আবহাওয়া বিভাগ জানায় দক্ষিণাঞ্চলের তাপমাত্রা গড় তাপমাত্রার চেয়ে ১০ থেকে ১৪ ডিগ্রি সেলসিয়ার বেশি চলছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সাউথ ওয়েলসের তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। অ্যাডিলেডে তাপমাত্রার পূর্বাভাস দেওয়া হয় সর্বোচ্চ ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং অগাস্টা বন্দর ও কুবার পেডি এলাকায় পূর্বাভাস দেওয়া হয় সর্বোচ্চ ৪৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গতকাল বৃহস্পতিবার সিডনির কেন্দ্রস্থলে তাপমাত্রা ২৯ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছাতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। পশ্চিমে পেনরিথ এলাকায় তা ৩৯ ডিগ্রি পর্যন্ত পৌঁছাতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। দুবো এলাকায় ৪২ ডিগ্রি, রিভেরিনা এলাকায় ৪৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছানোর পূর্বাভাস রয়েছে। সপ্তাহের শেষের দিকে শনি ও রবিবার সিডনির তাপমাত্রা ৩২ থেকে ৩৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস পর্যন্ত পৌঁছাতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। গত সোমবার ভিক্টোরিয়ার উডেন্ড কাউন্ট্রি অগ্নি নির্বাপণ দফতরের অনলাইনে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে দেখা যায়, সেখানকার বাসিন্দাদের ওপর পানি ছিটিয়ে তাদের ঠান্ডা করার চেষ্টা করা হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার নিউ সাউথ ওয়েলস এর স্বাস্থ্য বিভাগ সিডনিতে বাতাস দূষণ সতর্কতা জারি করে। তীব্র তাপের কারণে ওজন স্তর বাড়তে থাকায় এই সতর্কতা জারি করা হয়। দফতরের নির্বাহী পরিচালক জেরেমি ম্যাকঅ্যানাল্টি বলেন, ওজন স্তর সম্প্রসারিত হলে ফুসফুসকে আক্রান্ত করে। সেকারণে অ্যাজমা ও অন্যান্য ধরণের স্পর্শকাতর রোগে আক্রান্ত মানুষের অতিরিক্ত যতœ দরকার হয়। পশ্চিম অস্ট্রেলিয়া, সাউথ ওয়েলস এবং ভিক্টোরিয়ার বেশিরভাগ এলাকাতে জারি করা হয়েছে চরম অগ্নি সতর্কতা। আবহাওয়া বিভাগের সর্বশেষ পূর্বাভাস অনুযায়ী তাপপ্রবাহ কবে শেষ হবে তার কোনও ইঙ্গিত নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *