ত্বকের যত্নে রসালো টমেটো

স্বাস্থ্য: শীতকালে রান্না ঘরে সব থেকে সাধারন একটি সবজি হলো টমেটো। বাঙ্গালিরা প্রায় প্রতিদিন তাদের খাবারের তালিকায় রাখতে পছন্দ করেন কাঁচা-পাকা, রসালো, লাল টুসটুসে টমেটো। টমেটো দিয়ে ত্বকের চর্চা, এটা হয়তো অবাক করা বিষয়। কিন্তু টমেটো দিয়ে খুব সহজেই ত্বকের যতœ করে ত্বকের সৌন্দর্য ফিরিয়ে আনা যায়।
ত্বকে টমেটোর ব্যাবহার করাও খুবই সহজ। টমেটো রস করে, কিংবা পেস্ট করেও ত্বকে লাগানো যায়। টুসটুসে লাল এই ফলটির সব থেকে বড় গুণ হলো সকল ত্বকেই ব্যাবহার উপযোগী।
চলুন তাহলে জেনে নেই ত্বকের কি কি উপকার করে থাকে এই টমেটো।
– ত্বকের তৈলাক্ত ভাব কমিয়ে দেয়। অতিরিক্ত তেলের কারণে ত্বক অনেক বেশি আঠালো মনে হয়। যার ফলে ত্বকে কোনো ধরনের প্রসাধনী ব্যাবহার করা যায় না। টমেটো ত্বকে লাগালে ত্বকের প্রাকৃতিক ভাবে উৎপন্ন তেলের মাত্রা কমিয়ে দেয়।
– ত্বককে ময়েশ্চারাইজ করে। ত্বকের তেল উৎপন্ন কমিয়ে দেয় বলে এটা ভেবে নেওয়ার কোনো কারণ নেই যে ত্বক তার ময়েশ্চারাইজ হারিয়ে ফেলে। টমেটো ত্বকের অতিরিক্ত তেলতেলে ভাব কমিয়ে নিয়ে ত্বকের ময়েশ্চারাইজার ধরে রাখে।
– ত্বক থেকে ডেড সেলস দূর করে। টমেটো তে উপস্থিত এনজাইম ত্বকের উপরে অবস্থান নেওয়া ডেড সেলস গুলোকে খুব সহজেই তুলে ফেলে। পাশাপাশি ত্বকের ব্ল্যাকহেডস দূর করে। যাদের ত্বকে অনেক বেশি পরিমানে ব্রণ হয় তাদের ত্বকের জন্য রসে ভরা এই ফল অনেক উপকারী।
– ত্বকের জ¦ালা-পোড়া ভাব কমাতে সক্ষম। সবসময় মেকআপ প্রসাধনী ব্যাবহারের কারনে, অনেক লম্বা সময় সূর্যের আলোর নিচে থাকলে অনেক সময় ত্বকে জ¦ালা-পোড়া করে, এবং ত্বক লালচে হয়ে আসে। টমেটো তে প্রচুর পরিমানে অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি উপাদান রয়েছে যেমন বিটা ক্যারোটিন, ভিটামিন-ই, ভিটামিন-সি। উপস্থিত এ সকল উপাদান ত্বককে তাৎক্ষনিক ভাবে জ¦ালা-পোড়ার মত সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে সক্ষম।
– বয়স্ক ভাব কমিয়ে আনে। টমেটো কে একটি পাওয়ার হাউসের সাথে তুলনা করলে ভুল হবে না। কারণ এতে ভিটামিনের সমাহার রয়েছে। তন্মদ্ধ্যে উল্লেখযোগ্য কিছু ভিটামিন হলো ভিটামিন-বি১, বি৩, বি৫, এবং বি৯। এ ভিটামিন গুলো অ্যান্টি-এজিং বৈশিষ্ট্যের বাহক। ত্বকের চামড়া ঝুলে যাওয়া, বয়সের দাগ, চোখের নিচের কালো দাগ, পিগমেন্টেশনের মত সমস্যার সাথে লড়ে ত্বককে আরও বেশি স্বাস্থ্যকর করে তোলে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *