নারী নির্যাতন প্রতিরোধ বিষয়ক মতবিনিময় সভা

পিপ (পাবনা) : “ধর্ষণ ও যৌন নিপীড়ন মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ-” আসুন এ অপরাধের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াঁই” এ আহ্বান জানিয়ে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বিশ্ব মানবাধিকার দিবস (২৫ নভেম্বর-১০ ডিসেম্বর) ২০১৯ উপলক্ষে প্রশাসন, বিভিন্ন স্টেক হোল্ডারসহ পেশাজীবীদের সাথে বুধবার পাবনা জেলা প্রশাসক’র সম্মেলন কক্ষে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ বিষয়ক এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পাবনার জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ। বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, পাবনা জেলা শাখার (ভারপ্রাপ্ত), সভাপতি নুরুন নাহারের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্যে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, পাবনা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক, এড: কামরুন নাহার জলি সংগঠনের সুস্পষ্ট দাবী তুলে ধরেন এবং নারী নির্যাতন মুক্ত পাবনা গড়ার আহ্বান জানান। অন্যন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, পাবনা সিটি কলেজের প্রভাষক, শামসুন নাহার বর্না, অবসর প্রাপ্ত সহকারী অধ্যাপক কৃষিবিদ, জাফর সাদেক, ব্লাষ্ট এর সমন্বয়কারী এড: মো: আলমগীর হোসেন, অবশর প্রাপ্ত কর্মকর্তা, মো: শফি উদ্দিন মিয়া, ডা. আইনুন নাহার, সেলিম নাজির উচ্চ বিদ্যালয়ের, প্রধান শিক্ষক, মোছা: হাছিনা আক্তার রোজী, এড. আজিজা তামান্না স্বর্না, রোটা: পিপি এম এ জলিল, ওসাকার নির্বাহী পরিচালক, মো: মাজহারুল ইসলাম, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, মো কোবাদ আলী, শিক্ষার্থী, আবীর মো: জাহিদ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে, জনাব কবীর মাহমুদ বলেন,পুরুষরাতো মঙ্গলগ্রহ থেকে আসে না। আমরা ছেলে সন্তানকে কি শিক্ষা দিয়ে মানুষ করি? আমরা কি তাদের নারীদের সম্মান দেখাতে বলি। বাবা মারা যদি ছেলে সন্তানকে ঘর থেকেই নারীদের সম্মান করতে শেখায় তাহলেই নারী নির্যাতন বন্ধ করা সম্ভব। সন্তানদের নৈতিকতার ও মানুষের মত মানুষ হওয়ার শিক্ষা দিতে হবে। নারী নির্যাাতন প্রতিরোধে ব্যাক্তি পর্যায়ের সচেতনতা বাড়াতে হবে। পুরুষতান্ত্রিক মনোভাব বদলাতে হবে। মানবিক শিক্ষা হতে আমরা দূরে সরে যাচ্ছি। প্রতিটি মানুষেরই মানবিক শিক্ষা থাকা প্রয়োজন। অন্যান্য বক্তাগন বলেন, নারীদের ভালো পাত্রসস্থ করা বন্ধ করতে হবে। নারীকে পুরুষের মতই শিক্ষিত করেই মানুষ করে ভাল পাত্রি করে গড়ে তুলতে হবে। জনপ্রতিনিধিদের নারীর নিরাপত্বার প্রতি বিশেষ দৃস্টি দিতে হবে। ধর্ষক যেনো শাস্তি পায় সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে। সম্প্রচারের ক্ষেত্রে ভিকটিম ও পরিবারকে বাদ দিয়ে বেশি বেশি ধর্ষকের নিহসংসতার খবর বারবার প্রচার করতে হবে। মাদক বাল্যবিবাহ বন্ধ করতে হবে।

অনুষ্ঠিত সভায় সাংবাদিক, শিক্ষক, চিকিৎসক, আইনজীবী, কৃষিবিদ, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, সরকারী কর্মকর্তা, এনজিও প্রতিনিধি, জন প্রতিনিধি, ব্যবসায়ী, গৃহীনি, ছাত্র-ছাত্রীসহ বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের জেলা ও পাড়া কমিটির নেত্রীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সমগ্র সভাটি পরিচালনা করেন, সাংগঠনিক সম্পাদক, কামরুন নাহার জোসনা ও লিগ্যাল এইড সম্পাদক, শরিফা খাতুন সুখী, সমন্বয় করেন সংগঠনের প্রকল্প সমন্বয়কারী এ এম এস কিবরিয়া প্রিন্স।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *