পাবনায় গণধর্ষনের পর থানায় বিয়ে, সত্যতা পেয়েছে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের তদন্ত দল

নিজস্ব প্রতিবেদক, পাবনা : পাবনায় নারী ধর্ষণ ও থানায় বিয়ে দেয়ার ঘটনায় মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের নির্দেশে গঠিত জেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন দাখিল করেছেন। তদন্তে ধর্ষণ ও থানায় বিয়ে দেয়ার ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পেয়েছে তদন্ত দল। আজ সন্ধ্যায় পাবনার জেলা প্রশাসকের কাছে প্রতিবেদন দেন তিন সদস্যের কমিটি। পরে রাত আটটায় এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান জেলা প্রশাসক কবির মাহমুদ।

তিনি গণমাধ্যমকর্মীদের জানান, ধর্ষণ ও থানায় বিয়ে হওয়ার ঘটনায় গণমাধ্যমে যে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে সেসব বিষয় সামনে রেখে তদন্ত কমিটি কাজ করেছে। তদন্তে প্রকাশিত সংবাদের প্রাথমিক সত্যতা মিলিছে। এই তদন্ত প্রতিবেদন রাতেই মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের কাছে পাঠানো হবে।

উল্লেখ্য, মোবাইলে প্রেমের সুত্র ধরে পাবনা সদর উপজেলার সাহাপুর যশোদল গ্রামের এক নারীকে গত ২৯ আগষ্ট রাতে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে রাসেল নামের এক যুবক। তারপর আরো কয়েকজন তাকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ ওই গৃহবধূর। পরে ওই ভুক্তভোগী নারী বাদী হয়ে ৫ সেপ্টেম্বর পাবনা সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে, পুলিশ অভিযুক্ত রাসেলকে আটক করে। তবে মামলা নথিভুক্ত না করে ভুক্তভোগী নারীর সাথে থানা চত্বরে অভিযুক্তের বিয়ে দিয়ে ঘটনা মিমাংসার চেষ্টা চালানোর অভিযোগ ওঠে সদর থানা পুলিশের বিরুদ্ধে।

এ বিষয়ে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হলে পুলিশ সুপারের নির্দেশে ৯ সেপ্টেম্বর তদন্ত কমিটি গঠন ও মামলা নথিভুক্ত করা হয়। মামলার পর বিভিন্ন সময়ে অভিযান চালিয়ে মামলার প্রধান অভিযুক্ত রাসেলসহ ৫ জনকে গ্রেপ্তার করে জেলহাজতে পাঠায় পুলিশ। আর তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পাওয়ার পর সত্যতা পাওয়ায় গত বৃহস্পতিবার সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওবাইদুল হককে প্রত্যাহার ও উপ-পরিদর্শক একরামুল হককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

আর একইদিন মন্ত্রী পরিষদ বিভাগের নির্দেশে পাবনা জেলা প্রশাসন তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে ১৫ সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়। তদন্ত কমিটির আহবায়ক জানান, তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শণ সহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সাথে জবানবন্দি গ্রহণ করা হয়। তদন্ত শেষে নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই আজ তারা প্রতিবেদন দাখিল করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *