পাবনায় শিল্পকলা একাডেমি পরিদর্শনে সংস্কৃতি সচিব ; নিদৃষ্ট সময়ে কাজ শেষ করার নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক, পাবনা : পাবনায় হঠাৎ করে ঝটিকা সফরে আসেন পাবনার কৃতি সন্তান সাংস্কৃতি অনুরাগী গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সংস্কৃতিক সচিব ড. মোঃ আবু হেনা মোস্তফা কামাল।

মঙ্গলবার বিকেলে পাবনায় নবনির্মিত জেলা শিল্পকলা একাডেমির কাজের অগ্রগতি পরিদর্শন করেন তিনি। এসময় তিনি কাজের বিষয় নিয়ে কথা বলেন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের দায়িত্বরত ব্যক্তি ও সংশ্লিষ্ঠ গণপূর্ত বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে। কাজের অগ্রগতি ও সময় বৃদ্ধির বিষয়ে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রতি নির্দেশনা প্রদান করেন। নিদৃষ্ট সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করতে না পারলে তাদের কাজের লাইসেন্স ব্লাকলিষ্ট করার হবে বলে জানিয়েদেন সংস্কৃতি সচিব।

জেলা শিল্পকলা একাডেমি পরিদর্শনের সময় সংস্কৃতি সচিব ড. মোঃ আবুহেনা মোস্তফা কামাল গণমাধ্যম কর্মীদের বলেন, এই পাবনাকে সাংস্কৃতির একটি কেন্দ্রে রুপান্তরিত করতে চাই। নিজ জেলা পাবনায় দীর্ঘদিন শিল্পকলা একাডেমি ছিলোনা। সাংস্কৃতি কর্মীরা অনেক কষ্টকরে তাদের কর্মসূচি পালন করছে। মুজিববর্ষ উপলক্ষে এই শিল্পকলার মিলোনায়তন ব্যবহারের ইচ্ছা ছিলো আমাদের। আমরা জানি অনেক জেলাতে ভালো জায়গা নেই সংস্কৃতি কর্মকান্ড করার জন্য। আর এখানে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের জন্য সাংস্কৃতিক কাজের ব্যাঘাত হচ্ছে। তাই নিদৃষ্ট সময়ে মধ্যে কাজ হস্তান্ত করতে না পারলে তাদের কাজের লাইসেন্স ব্লাকলিস্ট করা হবে। সচিব আরো বলেন, ইতমধ্যে মহানায়িকা সূচিত্রাসেন পৈত্রিক বাড়িটি ঘিরে বড় প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। আশা করছি খুব সল্প সময়ের মধ্যে এই কাজ শুরু হবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, পাবনা জেলা প্রশাসক কবির মাহামুদ. অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শাহেদ পারভেজ, জেলা শিল্পকলা একাডেমির কালচারাল অফিসার মারুফা মনজুরী সৌমি, পাবনা সংবাদপত্র পরিষদের সভাপতি আব্দুল মতিন খান, পাবনা গণপূর্ত বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম খান, পাবনা ড্রামা সার্কেলের আজীবন সদস্য মুস্তাফিজুর রহমান প্রমুখ।

পাবনাবাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশিত শিল্পকলা একাডেমির নতুন ভবন নির্মানের কাজ শুরু হয় ২০১৭ সালের মে মাস থেকে। প্রথম পর্যায়ে প্রায় ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মান কাজ শুরু হলেও এখন পর্যন্ত প্রথম পর্যায়ের কাজ সমাপ্ত হয়নি। পাবনা গণপূর্ত সূত্রে জানাযায়, ইতমধ্যে গণপূর্ত বিভাগ টিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে সারে ১০ কোটি টাকা পরিশোধ করেছেন। কাজ সমাপ্ত হওয়ার পরে বাকী অর্থ ছাড় দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট বিভাগের দায়িত্বরত কর্মকর্তা। আর এরই মধ্যে অফিসকক্ষ ও সিমানা প্রাচির নির্মানসহ আনুসাঙ্গিক কাজের জন্য দ্বিতীয় দফার বরাদ্দর জন্য বাজেট স্টেমেট করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

দুইদফায় সময় বৃদ্ধিসহ দীর্ঘ চার বছর ধরে কাজ করছে এই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। সময় বৃদ্ধির পরে চলতি বছরের ৩০জুন এই কাজ সমাপ্ত করে হস্তান্তরের কথা রয়েছে। কিন্তু প্রায় তিনমাস ধরে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে নির্মান কাজ। সম্প্রতি প্রায় একমাসেরও বেশি সময় ধরে বন্ধ রয়েছে নির্মান কাজ। বালিশ কেলেঙ্কারির অন্যতম নায়ক শাহাদাতের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সাজিন এন্টারপ্রাইজ পাবনা শিল্পকলা একাডেমির ভবন নির্মানের কাজ করছে। পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কাজের অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগে বর্তমানে তিনি জেল হাজতে রয়েছে বলে জানা গেছে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *