পাবনায় শিশু সাংবাদিকদের দুইদিনব্যাপী কর্মশালা অনুষ্ঠিত

পিপ (পাবনা) : পাবনায় শিশু সাংবাদিকদের জন্য সংবাদ তৈরির কলাকৌশল বিষয়ে দুই দিনব্যাপী কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার বিকেলে পাবনা প্রেসক্লাবের বিআইপি অেিটারিয়ামে কর্মশালা শেষে তাদের মধ্যে সনদ বিতরণ করা হয়।

শিশুদের জন্য বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের বিশেষায়িত ওয়েবসাইট ‘হ্যালো’ আয়োজনে ইউনিসেফের সহযোগিতায় পাবনায় সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথী ছিলেন, সাংবাদিকতায় একুশে পদক প্রাপ্ত রণেশ মৈত্র। ‘হ্যালো’ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের পাবনা জেলা সমন্নয়কারী সৈকত আফরোজ আসাদের পরিচালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, পাবনা চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাষ্ট্রিজের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. আলী মূর্তজা বিশ্বাস সনি, পাবনা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারন সম্পাদক, এনটিভি ও দৈনিক সমকাল’র ষ্টাফ রিপোর্টার এবিএম ফজলুর রহমান ও বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের হ্যালো ও প্রিজমের ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী সম্পাদক সুলাইমান নিলয়।

রোববার অনুষ্ঠিত দুই দনব্যাপী এই কর্মশালায় ২০ জন শিশু সাংবাদিক অংশ নেয়। গতকাল সোমবার কর্মশালা শেষে আলোচনা সভার পর তাদের মধ্যে এই সনদ বিতরন করা হয়।

একুশে পদক প্রাপ্ত সাংবাদিক ও ভাষা সৈনিক রণেশ মৈত্র কর্মশালায় অংশ নেয়া সাংবাদিকদের বলেন, আজকের শিশু আগামীর অবিষ্যৎ। আর ভবিষ্যত শুভকর করতে তোমাদেরই কাজ করতে হবে। শুভ চিন্তা আর দেশপ্রেমের মধ্য দিয়ে দেশের জন্য ভাল কিছু করতে হবে। বাংলাদেশকে আগামী দিনে উন্নত করতে তোমার ভূমিকা যেন দেশবাসী মনে রাখে। তোমরা যারা এই কর্মশালায় অংশ নিয়ে সাংবাদিকতা শিখেছ, তারা সবাই শিক্ষার্থী। নিজেকে শিক্ষার্থী মাথায় রেখে পজেটিভ চিন্তার লেখা লেখবে এটাই কাম্য।

ব্যবসায়ী নেতা আলী মূর্তজা বিশ্বাস সনি বলেন, তোমরা যেন আগামী দিনে সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করবে। কোন অন্যায় দেখলে নিজে সেটা দমন না করতে পারলে, তাৎক্ষনিক ভাবে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীকে অবহিত করবে।

সিনিয়র সাংবাদিক এবিএম ফজলুর রহমান বলেন, আমাদের সময় আমরা কোনো প্রশিক্ষণ পাইনি। আমাদের সময় আমরাই ছাত্র আমরাই শিক্ষক ছিলাম। লিখতে লিখতেই শিখেছি। তোমরা যে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে যে শিক্ষা গ্রহন করলে তা মনে প্রানে দেশের ও দশের জন্যে কাজে লাগাবে।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের হ্যালো ও প্রিজমের ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী সম্পাদক সুলাইমান নিলয় বলেন, এই সাংবাদিকতা অবশ্যই পড়াশুনা বাদ দিয়ে নয়। এটি আনন্দ সাংবাদিকতা। তোমাদের সবাইকে সাংবাদিক হতেই হবে এমনটি নয়, লেখাপার পাশাপাশি আনন্দের মাঝে যে টুকু সময় পাবে সেই টুকু কাজে লাগানোর পরামর্শও দেন তিনি। তবে অবশ্যই দেশ গঠনে ভূমিকা রাখবে এমন চিন্তা চেতনা দিয়েই আনন্দ সংবাদিকতা করতে হবে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *