পাবিপ্রবির শিক্ষকদের কর্মসূচী স্থগিত; অবরুদ্ধ ভিসি মুক্ত

পাবনা প্রতিনিধি : সমাধানের আশ্বাসে এবং রিজেন্ট বোর্ডের জরুরী সভা আহবানের তারিখ ঘোষণা করায় পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মসুচী স্থগিত করেছেন শিক্ষকরা। এর মাধ্যমে অবরুদ্ধ ভিসিও মুক্ত হয়েছেন।
এর আগে দুপুর ১২টা থেকে নিজ কার্যালয়ে ভিসি ড. এম রোস্তম আলীকে অবরুদ্ধ করেন শিক্ষক ও কর্মকর্তারা।সাড়ে ৩ ঘন্টা পর বেলা সাড়ে তিনটার দিকে শিক্ষকরা কর্মসুচী স্থগিত করলে তিনি অবরোধমুক্ত হন।
বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সহযোগি অধ্যাপক ড. এম আব্দুল আলীম বলেন, পুর্ব নির্ধারিত সময় অনুযায়ী বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় রিজেন্ট বোর্ডের সভা উপাচার্যের কক্ষে শুরু হয়। সভায় ভিসির ভাতিজিসহ শতাধিক নিয়োগ, আপগ্রেডেশন ও শিক্ষকদের এমফিল পিএইচডি অনুমোদনের কথা ছিল। ভিসি স্যার নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি। তিনি তার ভাতিজিসহ ১০২টি পদে নিয়োগ দেয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু শিক্ষকদের বিষয়গুলো এড়িয়ে যান।
সভা চলাকালে বিতর্কিত নিয়োগ ও অনিয়ম নিয়ে রিজেন্ট বোর্ড সদস্যরা প্রশ্ন উত্থাপন করেন। এ সময় উপাচার্য রোস্তম আলী উত্তেজিত হয়ে ওঠেন। শিক্ষকদের সাথে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হট্টগোল শুরু হলে, সভা বাতিল ঘোষণা করেন তিনি।
পরে দুপুর ১২টার দিকে শিক্ষক কর্মকর্তারা উপাচার্যের কক্ষে তাকে অবরুদ্ধ করেন। খবর পেয়ে রিজেন্ট বোর্ডের অন্যতম সদস্য পাবনা-১ আসনের সাংসদ অ্যাডভোকেট শামসুল হক টুকু বিশ্ববিদ্যালয়ে গিয়ে উপাচার্যের সাথে উদ্ভুত পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেন।
সেখান থেকে বেরিয়ে তিনি গণমাধ্যমকর্মীেদের বলেন, শিক্ষকদের দাবি সহ সব বিষয়ে ভিসির সাতে কথা হয়েছে। আগামী ২৪ তারিখে রিজেন্ট বোর্ডের জরুরী সভা তিনি আহবান করে সংক্ষুব্ধ: শিক্ষকদের বিষয়গুলো সমাধানের আশ্বাস দিয়েছেন। আশা করছি এর মাধ্যমে সমস্যার সমাধান হবে।
শিক্ষক কর্মকর্তারা বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে শামসুল হক টুকুর এই আশ্বাসে তাদের কর্মসুচী স্থগিত করে অবরুদ্ধ ভিসিকে মুক্ত করে দেন।
এ বিষয়ে উপাচার্য ড. এম রোস্তম আলীর সাথে কথা বলার জন্য একাধিকবার চেষ্টা করা হলেও তিনি এ বিষয়ে কথা বলতে রাজী হননি।
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *