প্রচারণায় এমপিদের অংশগ্রহণের সুযোগ চাইলেন আতিক

ডেস্ক রিপোর্ট : ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নিশ্চিতে সংসদ সদস্যদের নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ নেয়ার সুযোগ দিতে নির্বাচন কমিশনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম।

শুক্রবার দুপুরে উত্তরায় নিজ নির্বাচনি কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এ অনুরোধ জানান। আতিকুল ইসলাম বলেন, নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে আমাকে একটি চিঠি দিয়েছে। আমি তার উত্তর দিয়েছি। আপনারা দেখেছেন আমাদের বাণিজ্যমন্ত্রী এবং অন্যান্য সংসদ সদস্যরা বলছেন তারা কোনও ধরনের ক্যাম্পিং করতে পারবেন না। তবে আমার কথা হচ্ছে আজকে যাঁরা সংসদ সদস্য আছেন, তারা তো দলেরই সদস্য। উনাদেরও তো ইচ্ছে করে আমার সঙ্গে ক্যাম্পিং করার। লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের জন্য আমি অনতিবিলম্বে নির্বাচন কমিশনের কাছে অনুরোধ করবো, অন্তত আমাদের দলের সংসদ সদস্য যাঁরা আছেন তারা যেন মাঠে নেমে আমাদের সঙ্গে কাজ করতে পারেন।

তিনি আরও বলেন, আজকে আমরা বিভিন্ন এলাকায় যাচ্ছি। আমাদের সংসদ সদস্যরা বলছেন – আমাদেরও তো ইচ্ছে করে ক্যাম্পিং করার জন্য। কারণ তারা তো ইলেকশন করেই এমপি হয়েছেন। তারা অভিজ্ঞ, তারা জানেন। তাদেরকে আমাদের ক্যাম্পিংয়ে যুক্ত করতে পারলে দেখতেও অনেক ভালো লাগবে। আপনারা জানেন বিএনপির মওদুদ সাহেব সংসদ সদস্য ছিলেন এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রীও ছিলেন। উনি ক্যাম্পিং করছেন আমার প্রতিপক্ষের সঙ্গে। আমরা মনে করি লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের জন্য সবকিছু খুলে দেওয়া হোক। আমরা ক্যাম্পিং করতে চাই সবাই একসঙ্গে। আমার বিশ্বাস উত্তর এবং দক্ষিণ মিলে আমরা একটি সুন্দর ঢাকা গড়তে পারবো। তিনি বলেন, নৌকার কোনো ব্যাক গিয়ার নেই। নৌকার গিয়ার একটাই-ফ্রন্ট গিয়ার।

তিনি বলেন, নৌকার শুধু উন্নয়নের গিয়ার আছে। আতিকুল ইসলাম বলেন, ডেঙ্গু আমাদের জন্য একটি অশনিসংকেত। ডেঙ্গু মোকাবিলায় আমাদের ৩৬৫ দিনই কাজ করতে হবে। ঢাকা শহর একটি অপরিকল্পিত শহর। এই অপরিকল্পিত শহরকে পরিকল্পিত করতে পারব ইনশাআল্লাহ্। এজন্য নাগরিকদের আমাকে সহযোগিতা করতে হবে। তিনি বলেন, এই অচল শহরকে সচল করতে, একটি আধুনিক, মানবিক, গতিময় শহর গড়তে আগামি ৩০ জানুয়ারি নৌকা মার্কায় ভোট দিন। আমি কাজপাগল একজন মানুষ, আমি কাজ করতে চাই। আমি ফাঁকি মারতে পছন্দ করি না। এই কাজপাগল মানুষ আপনাদের নিয়ে এই শহর গড়তে চায়।

নিজের বয়স নিয়ে সমালোচনা প্রসঙ্গে আতিকুল ইসলাম বলেন, এক সাংবাদিক আমাকে প্রশ্ন করেছেন, আমার প্রতিপক্ষ না কি বলেছে আমার তো বয়স হয়ে গেছে। আমি বলতে চাই-বয়সের চেয়ে বড় হচ্ছে মাথার ভেতরে বয়স কত আছে। আমি মনে করি, আমার প্রতিপক্ষ থেকে আমার সেই মাথার বয়স বেশি আছে, সাহস আছে। আমি মনে করি, আমার মাথার যে বয়স আছে, সেই বয়স দিয়ে আমার প্রতিপক্ষকে আরও ৫০ বছর বেশি সামনের দিকে নিতে পারব।

এর আগে শুক্রবার উত্তরা ৪ নম্বর সেক্টরের ৮ নম্বর রোডের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের সামনে থেকে গণসংযোগ শুরু করেন আওয়ামী লীগ মনোনীত এই প্রার্থী। প্রসঙ্গত, আগামি ৩০ জানুয়ারি ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। দুই সিটির প্রতিটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হবে ইভিএমের মাধ্যমে। সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলবে ভোটগ্রহণ।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *