প্রতিবন্ধি ভাতার অর্থ আত্মসাত সাঁথিয়ায় ইউপি সদস্যর বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক, সাঁথিয়া (পাবনা): পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার কাশিনাথপুর ইউপি সদস্য শহিদুর রহমান (শহিদ)এর বিরুদ্ধে প্রতিবন্ধির ভাতার টাকা আত্মসাতসহ বিভিন্ন অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরকারি গাছ কেটে আসবাবপত্র তৈরির অভিযোগে বেতন, ভাতা স্থগিত ও বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প থেকে অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে।

অভিযোগে জানা যায়, উপজেলার কাশিনাথপুর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ড সদস্য শহিদুর রহমান (শহিদ) মেহেদী নগর ৩৩ নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একটি মেহগনি গাছ কেটে নেন। এলাকাবাসীর অভিযোগের ভিত্তিতে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাঁথিয়া থানায় ১২নভেম্বর মামলা করেন। এ ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস এম জামাল আহমেদের নির্দেশে সরকারি বেতন ভাতা বন্ধসহ সকল উন্নয়ন প্রকল্প থেকে তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

এছাড়াও তার বিরুদ্ধে মৃত এক প্রতিবন্ধির ভাতা তুলে আত্মসাতের অভিযোগ করেন প্রতিবন্ধি সুরুজ আলীর স্ত্রী হেলেনা খাতুন। অভিযোগে বলা হয়, তার স্বামী ৫ বছর যাবত মারা গেছে। মারা যাবার পূর্ব থেকেই প্রতিবন্ধি কার্ড করে গোপনে সে টাকা উত্তোলন করে আসছে। ইউপি সদস্য শহিদুল রহমান এ পর্যন্ত প্রায় ৫০ হাজার টাকা প্রতিবন্ধি ভাতা উত্তোলন করে আত্মসাত করেছেন।

অপরদিকে চলতি কর্মসৃজনি(৪০ দিনের) প্রকল্পের কাজ প্রকল্প সভাপতি জাকিয়া সুলতানার নিকট থেকে ৭৫ হাজার টাকা দিয়ে কিনে নেন ওই ইউপি সদস্য। ক্রয়কৃত প্রকল্পে ৫১ শ্রমিকের পরিবর্তে ১৫/১৭ জন শ্রমিক দিয়ে কাজ করানোর অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। ২২ নভেম্বর আব্দুল হাই মিয়া বাদী হয়ে সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের সাধারণ মানুষ ইউপি সদস্য শহিদুল রহমানের অত্যাচারে অতিষ্ঠ। তার বিরুদ্ধে সরকারি ভাতাসহ বিভিনজনের কাছে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ দীর্ঘদিন ধরে করে আসছে ভুক্তভোগীরা।

এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য শহিদুল রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তার বিরুদ্ধে করা সকল অভিযোগই ষড়যন্তমূলক। গাছ কাটা মামলায় হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়েছেন তিনি ।

উপজেলা সমাজসেবা অফিসার আয়ুব আলী জানান, প্রতিবন্ধির স্ত্রীর একটি অভিযোগ পেয়েছি। অভিযুক্ত ইউপি সদস্যকে অফিসে আসতে বলেছি। বিষয়টি সমাধান না করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার এসএম জামাল আহমেদ জানান, গাছ কাটার অভিযোগে ওই ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। তার সরকারি সকল সুবিধা থেকে উপজেলা প্রশাসন অব্যাহতি দিয়েছে। মৃত প্রতিবন্ধির ভাতা উত্তোলন করে আত্মসাত দুঃখজনক। তার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *