বিপর্যস্ত ইন্দোনেশিয়া: করোনায় বাসাবাড়িতে নিঃসঙ্গ মৃত্যু

বিদেশ : বাড়ির ভেতর থেকে মৃতদেহ বের করছেন অগ্নিনির্বাপণ বাহিনীর কর্মীরা। অক্সিজেন সংকটের কারণে প্রাণ হারানোদের পাশে মৃত্যুর সময় কেউ ছিল না। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যুতে ইন্দোনেশিয়ার পরিস্থিতি এখন এমনটাই দাঁড়িয়েছে। যুক্তরাজ্যভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসি’র এক প্রতিবেদনে এমনটি জানানো হয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে প্রতিবেশীরা উদ্ধারকর্মীদের খবর দিয়েছে আসার জন্য। করোনার ভয়াবহতার এমন রূপের মুখোমুখি এখন ইন্দোনেশিয়া। এখন পর্যন্ত দেশটিতে প্রায় দুই দশমিক সাত মিলিয়ন মানুষ করোনায় আক্রান্ত। এই সপ্তাহে একদিনে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার করে মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছেন। দেশটি এখন এশিয়ার করোনার এপিসেন্টারে পরিণত হয়েছে। অতিসংক্রামক ডেলটা ভ্যারিয়েন্টের কারণে ইন্দোনেশিয়ায় এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। কোভিড ফ্রন্টলাইনার হিসেবে কাজ করছেন ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা। এরকমই উইরাওয়ান ইন্দোনেশিয়ার রাজধানী জাকার্তায় কর্মরত আছেন অগ্নিনির্বাপণকর্মী হিসেবে। কিন্তু, আগুন নেভানোর পরিবর্তে তিনি এখন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতদের মরদেহ উদ্ধারের কাজ করছেন। গত এক বছরে তিনি এবং তাঁর আরও সাত সহকর্মী বাসা-বাড়িতে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে সেগুলো কবর দেওয়ার কাজ করছেন। উইরাওয়ান বলেন, বেশির ভাগ মানুষ একা থাকা অবস্থায় মারা যাচ্ছেন। এর একটি কারণ হতে পারে তারা হয়তো প্রাথমিক চিকিৎসা পায়নি, নয়তো হাসপাতাল থেকে তাদের ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। উইরাওয়ান বলেন, ‘প্রায়ই মৃতদের প্রতিবেশীরা আমাদের ফোন করে বলেনÑ’অমুক ব্যক্তি সেলফ আইসোলেশনে থাকা অবস্থায় তাকে আর দেখা যায়নি।’ তারপর তারা জানতে পারেন সে ব্যক্তি মারা গেছেন। এ ধরনের ঘটনা আমরা প্রতিদিন দেখছি।’

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *