বিলুপ্তির পথে গ্রামবাংলার ঐতিহ্য ‘গোলাঘর’

ভাঙ্গুড়া (পাবনা)  সংবাদদাতা : কালের বিবর্তনে পাবনার ভাঙ্গুড়ায় প্রায়ই বিলুপ্তির পথে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য কৃষকদের ধান রাখার ‘গোলাঘর’। গোলা ভরা ধান আর পুকুর ভরা মাছ- এটি গ্রাম বাংলায় প্রচলিত একটি প্রবাদবাক্য। এখন পুকুর ভরা মাছ থাকলেও নেই কেবল গোলাভরা ধান। কারণ মানুষ আর এখন গোলাঘরে ধান রাখছে না।

আগের দিনে উপজেলার কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ক্ষেতের ধান গোলাঘরে মজুদ করে রাখতেন । বসত বাড়ির আঙ্গিনায় মাটি, বাঁশ আর টিনের ছাউনি দিয়ে তৈরি করা হতো ধান মজুদ রাখার এ ঘর। ধানের গোলা বসানো হতো বেশ উঁচুতে। যেন তাতে বর্ষার পানি প্রবেশ না করে। গোলায় প্রবেশের জন্য রাখা হতো একটি দরজা । দরজায় বাইরে থেকে তালা মেরে রাখা হতো চোরের হাত থেকে ফসল রক্ষার জন্য। এটি দেখতে অনেকটা পিরামিডের মতো। গোলাঘর দেখে অনুমান করা যেতো এলাকায় কে কত বড় জোতদার। প্রতি বছর ধান কাটার মৌসুম আরম্ভ হলে কৃষাণিরা গোলাঘর লেপে (মাটির আস্তর) প্রস্তুত করে রাখতো ।

গোলা ঘরের বদলে মানুষ এখন চট ও প্লাস্টিকের বস্তায় ধান ভরে ঘরে মজুদ রাখছেন। কথা হয় পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার কয়েকজন কৃষকের সাথে যার বাপ-দাদারা গোলাঘরে ধান মজুদ রাখতেন।

তারা জানান, আগের দিনে ধান রাখার জন্য গোলাঘর ব্যবহার করা হতো। গোলাঘরে ধান রাখায় ইঁদুর ও পোকামাকড়ের উৎপাত থেকে ফসল রক্ষা পেতো। একটি বড় গোলা ঘরে সাধারণত ২/৩শ’ মণ পর্যন্ত ধান রাখা যেতো। উপজেলার কয়েকটি বসত বাড়ির আঙ্গিনায় এখনো দেখা যায় গোলাঘর । তবে এতে রাখা হয় না ধান ।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *