ভাঙ্গুড়ায় ক্ষতিগ্রস্থ শিক্ষক পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি: পাবনার ভাঙ্গুড়ায় প্রভাবশালী সুমন বাবু কর্তৃক জোড় পূর্বক জমি দখল ও গাছ কর্তনের প্রতিবাদে সংবাদ সংম্মেলন করেছে মন্ডতোষ ইউনিয়ন নি¤œ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আওলাদ হোসেন। মঙ্গলবার বিকাল ৫ টার দিকে মন্ডতোষ বটতলা চত্ত্বরে তিনি এই সংবাদ সংম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মৃত বয়েন উদ্দীনের ছেলে শিক্ষক মোঃ আওলাদ হোসেন । তিনি বলেন, মন্ডতোষ গ্রামের মৃত আব্দুস সামাদের ছেলে সুমন বাবুর নেতৃত্বে আব্দুল মান্নান, রবিউল করিম, জাহাঙ্গীর হোসেন,বাবুল হোসেন,আমজাদ হোসেন,জাকির হোসেনসহ ২৫/৩০ জনের একটি সংঠিত হয়ে কুড়াল,খুন্তা,দা, হাসুয়া,লাঠিসহ মারাত্বক অস্ত্রসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে দাঙ্গা করিতে করিতে গত ২৩ শে জানুয়ারী ২০১৯ সালে আনুমানিক ১০টার দিকে মনতোষে অবস্থিত আমার পৈতিৃকসহ দখলীয় সম্পত্তিতে অন্যায়ভাবে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আমার বাগানে অনধিকার প্রবেশ করে ধরন্ত ১৫/২০ বছর বয়সী গাছ ৯টি লিচু গাছ ৯৪টি বাশ,০২টি বড় কুলগাছ,১২টি মেহগনী দিবদার ৩টি সহ অন্যান্য গাছ জোরপূর্বক কেটে ফেলে এবং বাঁশ গুলো ভ্যানে করে নিয়ে যায়। আমি ও উপস্থিত জনতা বাধা দিতে গেলে সুমনসহ তার দল আমাকে দা কুড়াল দিয়ে আমাকে প্রাণ নাশের হুমকি দেয় এবং বাড়ীর উপর গিয়ে মহিলাদের পযর্ন্ত ভীতি প্রদর্শনসহ কথ্য ভাষায় মানহানিকর বাক্য করতে থাকে। এতে আমার প্রায় ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতি হয়েছে। তিনি আরও অভিযোগ করেন যে ঘটনা স্থালে ভাঙ্গুড়া থানার এএসআই সাজেদুর রহমানসহ ১০/১২জনেরএকটি পুলিশের দল উপস্থিত ছিল। তাদের নিকট সাহায্য চাইলেও সে এবং তার ভাই আওয়াল হোসেনকে পুলিশ জোরপূর্বক থানায় ধরে নিয়ে যায় এবং সাদা কাগজে স্বাক্ষর নিয়ে ছেড়ে দেয়। পরর্বতীতে থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ২৬ শে জানুয়ারীতে সকাল ১০টায় সালিশ করার কথা বলে। ওই দিন আমরা সকালে থানায় উপস্থিত হলে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন থানার কিছুই করার নাই। থানায় উপস্থিত প্রধান বর্গকে গ্রামে বসে সমাধানের কথা বললেও আজ অবধি সমাধানের জন্য ডাকে নাই বলেও অভিযোগ করেন। পরে তার স্বাক্ষরিত একটি করে পত্র উপস্থিত সাংবাদিকদের মাঝে বিতরণ করেন। এসময় তার পাশে উপস্থিত ছিলেন মন্ডতোষ ইউপি সদস্য আব্দুস সামাদ,মন্ডতোষ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কে এম আনোয়ার হোসেন, স্বোচ্ছাসেবক লীগ নেতা মোঃ হেলাল উদ্দীন। এবিষয়ে মন্ডতোষ ইউনিয়নর ৭নং ওয়ার্ড সদস্য আব্দুস সামাদ সুমন রানা বিরুদ্ধে অবৈধ্যভাবে লোকজন নিয়ে গাছ কাটার কথা স্বীকার করেছেন।
ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে ভাঙ্গুড়া থানার ওসি মো. মাসুদ রানা বলেন, ‘সুমন বাবু ও আওলাদ হোসেন তাদের মধ্যে মামা ভাগনে সম্পর্ক রয়েছে। সুমন তার মায়ের ও এক খালার অংশের সম্পত্তি ক্রয় করেছে । সেই দিন ওই ক্রয়কৃত সম্পত্তি দখলে নিতে গিয়ে ছিল সুমন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনা স্থলে উপস্থিত হয়ে উভয় পক্ষকে সংর্ঘষের হাত থেকে রক্ষা করেছে এবং উভয় পক্ষকে সম্পত্তির বিষয়ে মীমাংশা না হওয়া পর্যন্ত শান্ত থাকতে বলা হয়েছে ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *