ভারতে না জন্মেও তারা বলিউড নায়িকা

বিনোদন: প্রযোজক ও পরিচালক দাদাসাহেব ফালকের হাত ধরে ১৯১৩ সালে যাত্রা শুরু করে বলিউড। সে বছর ৩ মে তার পরিচালিত প্রথম ভারতীয় ছবি ‘রাজা হরিশচন্দ্র’ মুক্তি পায় করোনেশন সিনেমায়। ছবিটি ছিল নির্বাক। বলিউডের ইতিহাসের সেই শুরু। তারপর দিনে দিনে বিশ্ব সিনেমার জমজমাট এক বাজার হয়ে উঠেছে বলিউড। এখানে কাজ করেছেন হাজারে হাজার অভিনেতা-অভিনেত্রী। যাদের মধ্যে অনেকেই ছিলেন ভারতের বাইরে থেকে আসা। বহিরাগত এসব শিল্পীদের কেউ সফল হয়েছেন, কেউ বা সফলতার মুখ দেখতে না পেরে চলে গেছেন নিজ দেশে। বর্তমান বলিউডেও দেখা যাচ্ছে এমন অনেক নায়িকা, যাদের জন্ম ভারতে হয়নি। এবং বেড়েও উঠেছেন অন্য কোনো দেশে। কিন্তু তারা নায়িকা হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করেছেন বলিউডে। বেশ শক্ত অবস্থানও করে নিয়েছেন অনেকে। তাদের নিয়ে এই আয়োজন-

ক্যাটরিনা কাইফ
কাঈজাদ গুস্তাদের ‘বুম’ সিনেমা দিয়ে বলিউড যাত্রা শুরু ক্যাটরিনার। ২০০৫ সালে ‘সরকার’ ছবি দিয়ে তার সফলতার পথ চেনা শুরু। এরপর একের পর এক হিট-সুপারহিট ছবিতে অভিনয় করে হয়ে গেছেন সুপারস্টার। ক্যারিয়ারের শুরুতে হিন্দি বলতে না পারা ক্যাটরিনা কাইফের জন্ম হংকংয়ে। যখন তার বয়স ৮ কাইফের পরিবার তখন হংকং থেকে চীনে স্থানান্তরিত হয়। শৈশবের বেশিরভাগ সময় হাওয়াই-তে কাটানো ক্যাট নাগরিকত্ব গ্রহণ করেন তার মায়ের জন্মভূমি ইংল্যান্ডের। তিনি ভারতীয় অভিনেত্রী হওয়ার পর এই দেশেও নাগরিকত্ব পেয়েছেন।

দীপিকা পাড়ুকোনা
বলিউডের বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় অভিনেত্রীদের একজন দীপিকা। ২০১৬ সালে জেনিফার লরেন্সের সঙ্গে বিশ্বের শীর্ষ ১০ জন সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক প্রাপ্ত অভিনেত্রীদের তালিকায় স্থান করে নেন এই অভিনেত্রী। বলিউডে দারুণভাবে সফল দীপিকার জন্ম ডেনমার্কের কোপেনহেগেনে। শৈশবের বেশ কিছু সময় ডেনমার্কে কাটানোর পর তিনি চলে আসেন ভারতের বেঙ্গালুরুতে। তারপর এখানেই বেড়ে ওঠা। মডেলিং দিয়ে শোবিজ যাত্রা শুরু করা দীপিকার বলিউড যাত্রা শুরু হয় শাহরুখ খানের বিপরীতে ‘ওম শান্তি ওম’ সিনেমা দিয়ে। বর্তমানে তিনি জনপ্রিয় অভিনেতা রনভীর সিংয়ের স্ত্রী।

জ্যাকুলিন ফার্নান্দেজ
জ্যাকুলিনের জন্ম ভারতের পার্শ্ববর্তী দেশ শ্রীলংকায়। ২০০৬ সালে ‘মিস ইউনিভার্স শ্রীলঙ্কা’ মুকুট লাভ করেন তিনি। ২০০৯ সালে ভারতে এক মডেলিংয়ের কাজে এসে তিনি ফ্যান্টাসিধর্মী ‘আলাদিন’ চলচ্চিত্রের জন্য অডিশন দেন। সেখানে নির্বাচিত হয়ে এই ছবির মাধ্যমেই তার বলিউডে অভিষেক হয়। এরপর থেকে আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। দর্শকদের ভালোবাসায় বলিউডেই রয়ে গেছেন তিনি।

নার্গিস ফাখরি
২০১১ সালে নিজের অভিষেক সিনেমা ‘রকস্টার’ দিয়ে একরকম হৈচৈ ফেলে দেন তিনি। সিনেমাটিতে রণবীর কাপুরের বিপরীতে অসাধারণ অভিনয় করে দর্শকের মনে জায়গা করে নেন নার্গিস। তবে তারকা এই অভিনেত্রীর জন্ম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কুইন্স শহরে। তিনি সেখানকারই নাগরিক। সর্বপ্রথম আমেরিকার নেক্স টপ মডেল হওয়ার মাধ্যমে মিডিয়াতে প্রবেশ করেন। এরপর হলিউডের ছবিতেও কাজ করেছেন। সেখানে খুব একটা সুবিদে করতে না পেরে বলিউডে পাড়ি জমান। এখানেও কিন্তু একক ক্যারিয়ার গড়ে তুলতে পারেননি তিনি। রণবীর কাপুর, উদয় চোপড়াদের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে বেশ আলোচনায় আসেন তিনি। এখনো ভারতেই রয়েছেন। তবে কাজ করতে দেখা যায় তাকে অনিয়মিতভাবেই।

সানি লিওন
ছিলেন পর্নস্টার। হয়ে গেছেন পুরোদস্তুর অভিনেত্রী। ‘জিসম ২’ ছবি দিয়ে বলিউড যাত্রা শুরু করা এই তারকা মূলত ভারতীয় বংশোদ্ভূত কানাডীয় নারী। তার জন্ম কানাডার অন্টারিওতে। ‘জিসম ২’ ব্যবসা সফল হওয়ার পরবর্তী সময় থেকে বলিউডে নিয়মিত কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। ২০১২ সালের ১৪ এপ্রিল সানি লিওন দ্য নিউ ইন্ডষ্টিয়ান এক্সপ্রেসকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে নিজেকে ভারতের নাগরিক হিসেবে ঘোষণা করেন। তিনি ব্যাখ্যা করেন যে তিনি ভারতের বৈদেশিক নাগরিক ছিলেন এবং তার বাবা ভারতে বসবাস করতেন। এছাড়াও ভারতের বাইরে থেকে এসে বলিউডে সিনেমা করেছেন বারবারা মোরি। উরুগুয়ে জন্ম মেক্সিকান এই মডেল হৃতিক রোশনের বিপরীতে ‘কাইটস’ ছবিতে জুটি বেঁধেছিলেন। এরপর অবশ্য আর তাকে বলিউডের কোনো সিনেমাতে দেখা যায়নি।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *