ভারী বর্ষণে আটঘরিয়ায় মাছের খামার ও কৃষি ফসলের ব্যাপক ক্ষতি

জিল্লুর রহমান রানা : পাবনার আটঘরিয়ায় গত ২ দিনের ভারী বর্ষণে মাছের খাবার ও কৃষি ফসলের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চল ঘুরে দেখা গেছে শুক্রবার দিন ও রাতের ভারী বর্ষণে বিভিন্ন মাঠ-ঘাট প্লাবিত হয়েছে। এতে শতশত মাছের খামারের পুকুর প্লাবিত হয়ে ভেসে মাছ চাষীদের ক্ষতি হয়েছে। এছাড়াও কৃষি ফসল ও শাক-সবজির মাঠে পানি বদ্ধ হয়ে সৃষ্টি হয়ে জলাবদ্ধতা। এতে কৃষি ফসলের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। সবজি উৎপাদনের ভান্ডার খ্যাত আটঘরিয়া উপজেলায় শিম, বরবটি, লাউ, চাল কুমড়া, মিষ্টি কুমড়া, কাঁচামরিচ সহ বিভিন্ন সবজির বিস্তীর্ণ মাঠ প্লাবিত হয়ে পানিতে তলিয়ে গেছে। এ বিষয়ে উপজেলার আটঘরিয়া পৌরসভা উত্তরসমূহ মৎস্যচাষী আবু দাউদ জানান, আমি ছয় বিঘা জমি বর্গা নিয়ে এ বছর মিশ্র পদ্বতিতে মাছ ও ধানের চাষ করি। আমি জমিতে প্রায় লক্ষাধিক টাকার মাছের পোনা অবমুক্ত করি কিন্তু গত দুইদিনের ভারী বর্ষণে আমার সমস্ত মাছের খামার প্লাবিত হয়ে মাছ বের হয়ে গেছে। এতে আমার প্রায় দুই লাখ টাকার ক্ষতি সাধিত হয়েছে। তিনি আরও বলেন, আমি এনজিও থেকে ঋণ করে এই মাছ এর খামার করেছি। এখন আমার যে ক্ষতি হয়েছে এতে আমার এখন পথে বসার উপক্রম হয়েছে। আমি এখন কি করে এনজিও ঋণ শোধ করবো ভেবে পাচ্ছিনা। উপজেলার বিশ্রম্পুর মহল্লার শিম চাষি আলাউদ্দিন মিয়া বলেন, আমি এ বছর দুই বিঘা জমিতে শিম আবাদ করেছি কিন্তু গত দুইদিনের ভারী বর্ষণে আমার সিমের জমিতে প্রায় দুই ফিট পানি বেধে গেছে। এতে আমার সিমের সমস্ত গাছ পানির তলে তলিয়ে গেছে এতে আমার প্রায় ৬০ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে। আমি এখন কি করবো ভেবে পাচ্ছিনা। এ বিষয়ে কৃষিবিদ মোনায়েম খান বলেন, উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে অপরিকল্পিতভাবে পুকুর খনন করার ফলে পানি নিষ্কাশনের কোন ব্যবস্থা না থাকায় উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে একটু বৃষ্টি হলেই ব্যাপক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। সরকার যদি এ সকল অঞ্চলের কৃষি পরিকল্পিতভাবে পানি নিষ্কাশনের জন্য ড্রেনেজ ব্যবস্থার ব্যবস্থা করেন তাহলে কৃষকরা তাদের ফসল ফলাতে পারবেন এবং লাভবান হতে পারবে। সবজি ভান্ডার খ্যাত জেলার আটঘরিয়া উপজেলার কৃষকদের দাবি সরকার যদি বিভিন্ন অঞ্চলে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করেন তাহলে কৃষকরা তাদের ঐতিহ্য রক্ষা করে আটঘরিয়া উপজেলায় সবজি উৎপাদনের ভান্ডার হিসেবে বাংলাদেশের বিভিন্ন দরবারে প্রতিষ্ঠিত করতে পারবেন।
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *