ম্যাচ পাতানোর কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি: লঙ্কান পুলিশ

স্পোর্টস: ২০১১ বিশ্বকাপের ফাইনাল ‘বিক্রি’ করার অভিযোগে শুরু হওয়া তদন্তের সমাপ্তি টেনেছে শ্রীলঙ্কান পুলিশ। ম্যাচটি পাতানোর কোনো প্রমাণ না পাওয়ার কথা জানিয়েছে তারা। ভারতের বিপক্ষে হেরে যাওয়া ওই ফাইনালে আগের ম্যাচের একাদশ থেকে চারটি পরিবর্তন এনেছিল শ্রীলঙ্কা। এতগুলি পরিবর্তন নিয়ে তখন বিস্ময় ছিল অনেকেরই, প্রশ্ন ওঠে এখনও। ওই বিশ্বকাপের সময়ের শ্রীলঙ্কার ক্রীড়ামন্ত্রী মাহিন্দানন্দা আলুথগামাগে গত ১৮ জুন অভিযোগ করেছিলেন, ২০১১ বিশ্বকাপের ফাইনাল ভারতের কাছে বিক্রি করেছে তার দেশ।

সেখানে ক্রিকেটারদের কেউ কেউ জড়িত বলেও ইঙ্গিত দিয়েছিলেন তিনি। কয়েকদিন পর অবশ্য সুর পাল্টে তিনি বলেন, তার কেবল সন্দেহ হয়। সেই সূত্র ধরেই লঙ্কান সরকার শুরু করে তদন্ত। লঙ্কান পুলিশের স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন ইউনিট গত সপ্তাহে আলুথগামাগের বক্তব্য রেকর্ড করে। এরপর ওই সময়ের জাতীয় দলের প্রধান নির্বাচক অরবিন্দ ডি সিলভাকে ৬ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

পরে সেই ম্যাচের অধিনায়ক কুমার সাঙ্গাকারাকে ১০ ঘণ্টা ও ব্যাটসম্যান উপুল থারাঙ্গাকে ২ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। মাহেলা জয়াবর্ধনেকে জিজ্ঞাসাবাদ করার কথা ছিল শুক্রবার। কিন্তু এর আগেই তদন্তে সমাপ্তি টানার ঘোষণা দেয় লঙ্কান পুলিশ। শুক্রবার সংবাদ মাধ্যমকে এক মুখপাত্র জানান, দলে পরিবর্তন আনার পেছনে যৌক্তিক কারণ দেখিয়েছেন সবাই।

“আমরা তাদের ব্যাখ্যায় সন্তুষ্ট। তদন্ত এখন বন্ধ। ফাইনাল ম্যাচের দলে পরিবর্তন আনার যৌক্তিক ব্যাখ্যা তারা দিয়েছে। অবৈধ কাজের কোনো প্রমাণ আমরা পাইনি।” গত নভেম্বরে শ্রীলঙ্কায় ম্যাচ ফিক্সিংকে ফৌজদারি আইনে অপরাধ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এই অপরাধে শাস্তি হতে পারে ১০ বছর পর্যন্ত জেল ও জরিমানা হতে পারে ১০ কোটি রুপি।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *