ম্যারাডোনার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ

বিদেশ : ফুটবলের জাদুকর, কিংবদন্তি দিয়াগো ম্যারাডোনার বিরুদ্ধে নির্যাতন এবং ধর্ষণের অভিযোগ এনেছেন কিউবার ৩৭ বছর বয়সী এক যুবতী মাভিজ আলভারেজ রিগো। এখন থেকে ২০ বছর আগে দিয়াগো ম্যারাডোনার সাথে তার সম্পর্ক ছিল বলে দাবি করেছেন ওই যুবতী। অভিযোগে বলেছেন, আর্জেন্টিনার সাবেক ও প্রয়াত এই কিংবদন্তি তার ওপর সহিংসতা এবং নির্যাতন চালিয়েছেন। তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাকে ধর্ষণ করেছেন। রক্ত জমাট বাঁধার ফলে ব্রেনে অপারেশনের পর মারাদোনা মারা যান। মাভিজ আলভারেজ রিগো বর্তমানে বসবাস করেন যুক্তরাষ্ট্রের মিয়ামিতে। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা এএফপি। আর্জেন্টিনার রাজধানী বুয়েন্স আয়ার্সে ম্যারাডোনার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ আনেন তিনি। তিনি বলেন, ১৬ বছর বয়স ম্যারাডোনার সাথে সাক্ষাৎ হয়। ওই সময়ে ম্যারাডোনার বয়স ছিল ৪০ বছর বা তারও বেশি। এ সময় ম্যারাডোনা মাদকের চিকিৎসা নিতে অবস্থান করছিলেন কিউবাতে। মাভিজ আলভারেজ রিগো বলেছেন, আমি হতবাক হয়ে গিয়েছিলাম। তিনি আমাকে জয় করে নিলেন। এর দু’মাসের মধ্যে সবকিছু পালটে যেতে শুরু করল। তার অভিযোগ এ সময়ে ম্যারাডোনা তাকে কোকেন সেবনে জন্য চাপ দিতে থাকেন। মাভিজ আলভারেজ রিগোর ভাষায়, আমি তাকে ভীষণ ভালবাসতাম। একই সাথে আমি তাকে ঘৃণাও করতাম। কখনো কখনো আমি আত্মহত্যা করতে চেয়েছি। সারা বিশ্বজুড়ে ইতিহাসের সবচেয়ে বিখ্যাত ফুটবলারদের অন্যতম হিসেবে দেখা হয় ম্যারাডোনাকে। তার নেতৃত্বে ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপ ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন হয় আর্জেন্টিনা। সেই থেকে আর্জেন্টিনার এক নতুন ক্রেজ সৃষ্টি করেছে সারা বিশ্বে। এর মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশও। বিশ্বকাপ ফুটবল শুরু হলেই তাই দেখা যায় আর্জেন্টিনার পতাকার মাতামাতি বাংলার আকাশে। বর্তমানে দুই সন্তানের মা মাভিজ আলভারেজ রিগো। এর মধ্যে একটির বয়স ১৫বছর এবং অন্যটির বয়স চার বছর। তিনি দাবি করেছেন, ম্যারাডোনার সাথে তার সম্পর্ক টিকে ছিল চার থেকে পাঁচ বছর। এ সময় তাকে নির্যাতনসহ ধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ করেন মাভিজ আলভারেজ রিগো। তিনি আরো দাবি করেন ২০০১ সালের ম্যারাডোনার সাথে বুয়েন্স আয়ার্সে এক সফরে যান। সেখানে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে কয়েক সপ্তাহ একটি হোটেলে আটকে রাখা হয় তাকে। হোটেল থেকে একাকী বাইরে বের হতে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। জোরপূর্বক তার স্তন স্ফীতকরণ করা হয় মাভিজ আলভারেজ রিগোর। তার দাবি, একবার হাভানায় নিজেদের বাড়িতেই ম্যারাডোনা তাকে ধর্ষণ করেন। এ ছাড়া বেশ কয়েক বার তার ওপর শারীরিক নির্যাতন চালান। এ অভিযোগের ভিত্তিতে ফাউন্ডেশন ফর পিস একটি অভিযোগ দাখিল করেছে। অভিযোগে মানবপাচার, স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ, জোরপূর্বক মাদকসেবন, নির্যাতনের কথা বলা হয়েছে। মাভিজ আলভারেজ রিগো বলেছেন, এতদিন তিনি নীরব ছিলেন এজন্য যে ম্যারাডোনার ২৫শে নভেম্বর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এসব অভিযোগ তিনি একটি টিভি সিরিজের উপস্থাপন করবেন। বলেছেন, আমার যা করার করেছি। এখন বাকিটা আদালতের বিষয়। আমি আমার লক্ষ্য অর্জন করেছি- আমার সাথে কি করা হয়েছিল সেগুলো বলেছি। ওদিকে দিয়েগো ম্যারাডোনার ৫ সফরসঙ্গী এমন অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন। একজন আইনজীবীর মাধ্যমে পাল্টা অভিযোগ উত্থাপন করেছেন তাদের একজন।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *