ময়নাতদন্তের রিপোর্ট: কৃষ্ণাঙ্গ যুবক ব্রুকসকে হত্যা করা হয়েছে

বিদেশ : ময়নাতদন্তের রিপোর্টে যুক্তরাষ্ট্রের আটলান্টায় পুলিশের গুলিতে নিহত কৃষ্ণাঙ্গ যুবক রাইশার্ড ব্রুকসের মৃত্যুকে ‘হত্যাকা-’ বলে উল্লেখ করেছেন ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা। গত শুক্রবার রাতে আটলান্টার একটি ফাস্টফুড রেস্টুরেন্টের কাছে পুলিশের গুলিতে ২৭ বছর বয়সী কৃষ্ণাঙ্গ যুবক রাইশার্ড ব্রুকস নিহত হন।

এ হত্যাকা-ের প্রতিবাদে বিক্ষোভকারীরা শনিবার রাতে আটলান্টার একটি প্রধান মহাসড়ক বন্ধ করে দেন এবং ফাস্টফুড চেইন ‘ওয়েন্ডি’র ওই রেস্টুরেন্টটি আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেন। এর দুই সপ্তাহ আগে পুলিশের হাতে প্রাণ হারানো আরেক কৃষ্ণাঙ্গ যুবক জর্জ ফ্লয়েডের ময়নাতদন্তের রিপোর্টেও হত্যার কথা উল্লেখ করা হয়। গত ২৫ মে মিনিয়াপোলিস শহরে এক পুলিশ কর্মকর্তার হাঁটুচাপায় ৪৬ বছর বয়সী কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যু হয়।

তার পর থেকে দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে আমেরিকাজুড়ে পুলিশি বর্বরতা ও বর্ণবাদবিরোধী তীব্র প্রতিবাদ চলছে। এ পরিস্থিতিতেই আটলান্টায় পুলিশের গুলিতে আরেক কৃষ্ণাঙ্গের মৃত্যু হলো। এ ঘটনা চলমান ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনে আরও ইন্ধন জোগাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। ওয়েন্ডির রেস্টুরেন্টের সামনে গাড়ির লাইনে অপেক্ষা করার সময় গাড়িতেই ঘুমিয়ে পড়েছিলেন ব্রুকস।

ব্রুকসকে থানায় নেয়ার উদ্যোগ নেয় পুলিশ। ঘটনাস্থলে উপস্থিত একজনের ধারণ করা ভিডিওতে দেখা গেছে, রেস্টুরেন্টের সামনের রাস্তায় দুই শ্বেতাঙ্গ পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে ধস্তাধস্তি করছেন ব্রুকস। এর পর মুক্ত হয়ে পার্কিং লট দিয়ে দৌড়ে যাচ্ছেন। এ সময় তার হাতে পুলিশের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেয়া একটি টেইজার গান ছিল বলে মনে হয়েছে।

রেস্টুরেন্টের সিসি ক্যামেরায় ধারণ করা আরেক ভিডিওতে দেখা যায়, দৌড়ানো অবস্থায় ঘুরে পেছনে আসা দুই পুলিশ কর্মকর্তার মধ্যে একজনের দিকে সম্ভবত টেইজার গান তাক করছেন ব্রুকস। এ সময় দুই শ্বেতাঙ্গ পুলিশের কোনো একজনের গুলিতে তিনি রাস্তায় লুটিয়ে পড়ছেন। এখান থেকে ব্রুকসকে হাসপাতালে নেয়ার পর সেখানে তিনি মারা যান।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *