যেসব খাবারে অ্যাজমার সমস্যা বেড়ে যায়

স্বাস্থ্য: অ্যাজমার সমস্যা বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে খুবই ভয়ংকর হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশেষত অ্যাজমার সমস্যায় আক্রান্ত সকলেরই রয়েছে নানা বাছবিচার। খাবারের ব্যাপারে বিধি নিষেধ তো আছেই। কিন্তু অনেকেই ভালোমতো জানেন না সঠিক ভাবে অ্যাজমার সমস্যায় কোন খাবার গুলো আমাদের খাওয়া উচিত এবং কোন খাবার গুলো ডায়েট থেকে বাদ দিতে হবে। চলুন জেনে নেই কোন খাবারগুলো খাবেন এবং কোন খাবারগুলো খাবেন না:
অ্যাজমায় ক্ষতি করে কি কি খাবার
অ্যাজমার সমস্যা থাকলে শুষ্ক ফল এড়িয়ে চলবেন। শুকনো ফলে সালফাইট থাকে প্রচুর পরিমাণে। আর সালফাইট অ্যাজমার সমস্যা বাড়ায়। এলকোহল এবং অন্যান্য অনেক খাবারেও ঝামেলা হতে পারে।
গ্যাস উৎপন্ন করে এমন খাবার যেমন বিন জাতীয় সবজি, রসুন, আচার ইত্যাদি খাবার এড়িয়ে চলতে হবে।
কফি, চা বা অন্যান্য অনেক পানীয়তে স্যালিসিলেটস নামক পদার্থ থাকে। এই উপাদান দেহের প্রদাহজনিত সমস্যা দূর করতে পারলেও শ্বাসকষ্ট সৃষ্টি করে। তাই কফি এড়িয়ে চলতে হবে।
মাছের ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড অ্যাজমা আক্রান্ত রোগীর প্রচুর ক্ষতি করে।
সাপ্লিমেন্ট বা কোনো ধরণের লিকুইড নাইট্রোজেন দেহের ক্ষতি করে।
জেনে নিন কোন কোন খাবারে মিলবে উপকার
অ্যাজমার নিরাময়ে কোনো নির্দিষ্ট কোনো খাবার নেই। ফল আর সবজি এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ। ফল আর সবজিতে বেটা ক্যারোটিনের মতো এন্টি-অক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন ই থাকে। এসকল উপাদান দেহের উপকার সাধন করে। এ ছাড়া ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করা উচিত। এধরণের খাবার খেলে ফুসফুসে প্রদাহের সমস্যা সৃষ্টি করে এমন উপাদানগুলো কিছুটা ব্যাহত হয়।
ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার বেশি বেশি খাওয়া উচিত। অনেকে রোদের মাধ্যমে এই ভিটামিন ডি জোগাড় করতে পারে। তবে কিছু সামুদ্রিক মাছ এবং খাবারে ভিটামিন ডি পাওয়া যায়। এতে ইমিউন সিস্টেম আরো শক্তিশালী হয়ে ওঠে।
বাদাম এবং বীজজাতীয় খাবারও অ্যাজমার অস্বস্তি কমাতে সাহায্য করে। কারণ এতে প্রচুর ভিটামিন ই পাওয়া যায় যা দেহের জন্যে প্রয়োজনীয়।
টমেটো দিয়ে রান্না করা খাবার বেশি খেলে উপকার মিলে।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *