রাতে রেললাইন ধরে হাঁটছিলেন, অল্পের জন্য রক্ষা পেলেন ৫১ ভারতীয় শ্রমিক

বিদেশ : ভারতের মহারাষ্ট্রে মালবাহী ট্রেনে কাটা পড়ে ঘুমন্ত ১৬ পরিযায়ী শ্রমিক নিহত হওয়ার কয়েক ঘণ্টা আগে বীরভূমেও একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হতে যাচ্ছিল। তবে চালকের কারণে অল্পের জন্য প্রাণে রক্ষা পেে য়ছেন ৫১ শ্রমিক। পত্রিকা জানিয়েছে, ৫১ জন পরিযায়ী শ্রমিক ধান কাটার কাজ করেন বর্ধমানে। দুজনের বাড়ি মালদহে। বাকিদের বাড়ি ঝাড়খ-ের বরহরওার বিভিন্ন গ্রামে।

তাদের সঙ্গে মেয়ে, পুরুষ, বাচ্চাকাচ্চা সবাই ছিল। লকডাউনে গাড়ি না পেয়ে পায়ে শুক্রবার রাত ১০টার দিকে রেললাইনের ওপর দিয়ে পায়ে হেঁটে বাড়ি ফিরছিলেন সবাই। ব্রাহ্মণী সেতুর উপর আসতেই বিপরীত দিক থেকে একটি ট্রেন চলে আসে। দূর থেকে চালক বুঝতে পেরে ব্রেক চেপে টানা তীব্র হর্ন বাজাতে শুরু করেন। ট্রেনের তীব্র হর্ন আর ইঞ্জিনের আলো দেখে পায়ে চলা মানুষরা থেমে যান। এরপর খবর পেয়ে পুলিশ তাদের উদ্ধার করে নলহাটি স্টেশনে নিয়ে আসে।

নলহাটি ১ ব্লকের বিডিও জগদীশ চন্দ্র বারুই বলেন, আমরা তাদের থাকা খাওয়ার বন্দোবস্ত করেছি। বাসেরও ব্যবস্থা করা হচ্ছে তাদের বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য। ওই ৫১ জনের দলের একজন জোসেফ টুডু বলেন, আমি ছিলাম দলের পেছনের দিকে। প্রথমে বুঝতে পারিনি উল্টো দিক থেকে ট্রেন আসছে। দলের বেশির ভাগই তখন ব্রিজের উপর। নামার জায়গা ছিল না।

জোসেফ অওরঙ্গাবাদের ঘটনা শুনেছেন। তবু তার কথায়, বাড়ি তো ফিরতেই হবে। না হলে তো অভুক্ত থাকতে হবে। গোটা দল এখন প্রহর গুনছে কখন সরকার বাস দেবে, বাড়ি ফিরবেন সবাই। শুক্রবার ভারতের মহারাষ্ট্রে একটি মালবাহী ট্রেনে কাটা পড়ে ঘুমন্ত ১৬ পরিযায়ী শ্রমিক নিহত হন। লকডাউনের মধ্যে নিহত শ্রমিকরা হেঁটে মধ্য প্রদেশে যাচ্ছিলেন; পথে অরঙ্গবাদের কর্মদ এলাকার কাছে একটি রেললাইনের ওপর ঘুমিয়ে পড়েন তারা।

স্থানীয় সময় ভোর সোয়া ৫টার দিকে তাদের ওপর দিয়ে মালবাহী ট্রেনটি চলে যায়। মুহূর্তেই শরীর কেটে ছিন্নভিন্ন হয়ে যায় শ্রমিকদের। ঘটনাস্থলেই মারা যান সবাই।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *