লিওয়ানদোস্কির জোড়া গোলে ডায়নামো কিয়েভকে বড় ব্যবধানে হারাল বায়ার্ন

স্পোর্টস: রবার্ট লিওয়ানদোস্কির জোড়া গোলে বুধবার ডায়নামো কিয়েভের বিপক্ষে ৫-০ ব্যাবধানে বড় জয় পেয়েছে বায়ার্ন মিউনিখ। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এই নিয়ে টানা দ্বিতীয় ম্যাচে জোড়া গোল করলেন পোলিশ স্ট্রাইকার।ম্যাচের প্রথমার্ধেই চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ক্যারিয়ারের ৭৬ ও ৭৭তম গোল করেন লিওয়ানদোস্কি। এতেই ২-০ গোলে এগিয়ে যায় বায়ার্ন মিউনিখ। বিরতির পর স্বাগতিক দলের হয়ে বাকী গোল তিনটি করেন যথাক্রমে সার্জি গ্যানাব্রি, লেরয় সানে ও ম্যাক্সিম চুপো-মোটিং। পক্ষকাল আগে বার্সেলোনার বিপক্ষে ৩-০ গোলে জয় পাওয়া ম্যাচেও জোড়াা গোল করেছিলেন লিওয়ানদোস্কি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে সর্বশেষ ১৮ ম্যাচ থেকে ২৪ গোল আদায় করা এই পোলিশ তারকা এখন ব্যালন ডিঅঁর খেতাবের জোড়ালো দাবীদার হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। নভেম্বরের শেষদিকে এই পুরস্কার দেয়া হবে। গতকালের এই জয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ‘ই’ গ্রুপের শীর্ষস্থান অক্ষুন্ন রেখেছে বায়ার্ন মিউনিখ। তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা বেনফিকার চেয়ে তারা দুই পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছে। পরের ম্যাচে ওই দলটির মোকাবেলা করবে জার্মান চ্যাম্পিয়নরা। বুধবার লিসবনে অনুষ্ঠিত গ্রুপের অপর ম্যাচে বার্সেলোনাকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে বেনফিকা। জার্মান জায়ান্টদের রুখতে রক্ষনাত্মক দল সাজিয়েছিলেন ডায়নামোর কোচ মিরসিয়া লুসেস্কু। তারপরও ১২ মিনিটেরও কম সময়ের মধ্যে লিড নিয়ে নেয় স্বাগতিক বায়ার্ন। কিয়েভের অধিনায়ক সেরহি সিডরচুক নিজেই রক্ষনভাগের তদাররকিতে ছিলেন। কিন্তু জুসুয়া কিমিচের কর্নারের বল পরিচালনা করতে গিয়ে বক্সেই ফাউলের কারণে পেনাল্টি পায় স্বাগতিক দল। পেনাল্টি থেকে ২৫ হাজার দর্শকের সামনে গোল করেন লিওয়ানদোস্কি। কোভিড নীািতমালার কারণে আলিয়াঞ্জ অ্যারেনায় ধারন ক্ষমতার এক তৃতীয়াংশ দর্শক প্রবেশের অনুমতি দিয়েছিল কর্তৃপক্ষ। ম্যাচের ২৭ মিনিটে থমাস মুলার সফরকারী দলের দুই ডিফেন্ডারের ফাঁক দিয়ে বল চালান করলে সেটি দিয়ে নিজের এবং দলের দ্বিতীয় গোল করেন লিওয়ানদোস্কি। এই নিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ১৯ ম্যাচে দুই বা ততোধিক গোলের দেখা পেলেন পোল্যান্ডের এই আন্তর্জাতিক স্ট্রাইকার। প্রথমার্ধেই আরো বড় ব্যবধান নিয়ে বিরতিতে যেতে পারতো বায়ার্ন। কিন্তু ৩৫ মিনিটে লেরয় সানের শটের বলটি গোলপোস্টে লেগে দিক পরিবর্তন করে। ম্যাচের একপর্যায়ে ডাযনামোর সিমান্তেই সিমাবদ্ধ ছিল খেলা। বিরতির পর ৬৮ মিনিটে স্বাগতিকদের ব্যবধান আরো বাড়িয়ে দেন গ্যানাব্রি। এর আগে দুইবার প্রতিপক্ষের বক্সে ব্যর্থ প্রচেস্টা চালিয়েছেন সানে। শেষ পর্যন্ত ৭৪ মিনিটে সফলতা পান তিনি। এতে ৪-০ গোলের ব্যবধান রচনা করে বায়ার্ন। ম্যাচের ৮৭ মিনিটে স্বাগতিক দলের হয়ে শেষ গোলটি করেন লিওয়ানদোস্কির বদলি হিসেবে মাঠে নামা চুপো-মোটিং।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!