শুকিয়ে যাচ্ছে বেড়ার স্কুল ছাত্র দুই ভাইয়ের হাত-পা

বেড়া (পাবনা) সংবাদদাতা : এগারো বছর বয়সী সাব্বির ও নয় বছর বয়সী রাব্বি দুই ভাই। নাম না জানা রোগে মৃত্য পথয়াত্রী তারা। গরীব অসহায় বাবার সাধ্য নেই চিকিৎসা করার। বেড়া উপজেলার সিন্দুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র তারা।

পাবনার বেড়া উপজেলার কাবাসকান্দা গ্রামের দরীদ্র বাস চালক মিন্টু সেখের ৩ ছেলে নিয়ে তার সুখের পরিবার। হঠাৎ যেন সুখের ঘরে দুখের ছায়া নেমে আসে। বছর খানেক আগেও বইখাতা নিয়ে সহপাঠিদের সাথে স্কুলে যেত সাব্বির ও রাব্বি।

লেখাপড়ায়, কী খেলাধুলায় মেতে থাকতো সারাদিন। কিন্তু উচ্ছ্বল-প্রাণবন্ত ওই শিশুদুটির হাসিতে হঠাৎই যেন ছন্দপতন ঘটলো। বন্ধ হয়ে গেলো স্কুলে যাওয়া।

সাব্বিরের বছর খানেক আগে হাত ও পা শুকিয়ে যেতে থাকে। পরবর্তীতে মাস ছয় পরে ছোট ছেলে রাব্বিরও একইভাবে হাত ও পা শুকাতে থাকে। দু‘জনকে নিয়েই মিন্টু বিভিন্ন সময়ে পাবনা-রাজশাহী-ঢাকায় দৌঁড়াদৌঁড়ি করতে থাকেন চিকিৎসার জন্য। কোন ডাক্তারই ওদের রোগ ধরতে পারেননি।

ডাক্তারদের মতে, প্রতিবেশি দেশ ভারতে নিলে হয়তো চিকিৎসা ও আরোগ্য সম্ভব। অন্যথায় তাদের বাঁচানো যাবে না। এজন্য প্রয়োজন কমপক্ষে দুই লক্ষাধিক টাকা। কিন্তু দরীদ্র বাস চালক মিন্টুর পক্ষে এই ব্যয়বহুল চিকিৎসা করানো কোনমতেই সম্ভব নয়। তবে মিন্টুর ধারণা বিত্তবানদের একটুখানি চেষ্টায় বেঁচে যেতে পারে দুটি প্রাণবন্ত ও উচ্ছ্বল প্রাণ, তাদের স্বপ্ন।

দিন দিন মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাচ্ছে ওরা। অসহায় বাবা-মায়ের বোবা কান্না আর ওই শিশুদের আকুতিভরা চাহনী পাড়া প্রতিবেশীদের মনকেও যেন ভারী করে তুলেছে।

এমতাবস্থায় তাদের বাবা মিন্টু বলেন, চিকিৎসার জন্য আমি সকল হৃদয়বান ও দানশীল ব্যক্তির আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করছি। আপনাদের একটু সহযোগিতায় বাঁচাতে ্পারে আমার দুটি সন্তানের জীবন। চিকিৎসার জন্য সহযোগিতা দিতে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারেন এই মোবাইল নম্বরে-০১৭২৭৮৮৫০৮৩।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *