সাবেক এমপি ও প্রখ্যাত শ্রমিক নেতা ওয়াজি উদ্দিন খান এর দাফন শনিবার

পিপ (পাবনা) : বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি, প্রখ্যাত শ্রমিকনেতা, পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি ও পাবনা-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য বীরমুক্তিযোদ্ধা ওয়াজিউদ্দিন খান (৮৪) আর নেই। শু

ক্রবার সকাল সাড়ে নয়টার দিকে পাবনা শহরের আটুয়া হাউজপাড়া মহল্লার নিজ বাসায় তিনি ইন্তেকাল করেন। (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজেউন)। তিনি স্ত্রী, দুই মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। স্কয়ার টয়লেট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অঞ্জন চৌধুরী পিন্টু, পাবনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রেজাউল রহিম লাল, রাজশাহী বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ মোশারোফ হোসেন, আওয়ামীলীগ নেত আবুল কালাম আজাদ, আব্দুল হামিদ মাষ্টার, পাবনা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা রবিউল ইসলাম রবি, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এবিএম ফজলুর রহমান, পাবনা সংবাদপত্র পরিষদ সভাপতি আব্দুল মতীন খান, সাধারণ সম্পাদক শহিদুর রহমান শহীদ, সময় টিভি প্রতিনিধি সৈকত আফরোজ আসাদ, একাত্ত্বর টিভি প্রতিনিধি মুস্তাফিজুর রহমান রাসেল, এটিএন নিউজ প্রতিনিধি রিজভী জয়সহ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, বিএনপির নেতাকর্মী, পরিবহন শ্রমিকসহ সাধারন মানুষ তার মৃত্যুর খবর পেয়ে শেষবারের মত তাকে একনজর দেখতে এবং পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাতে বাসভবনে ছুটে যান।

পাবনা সদর উপজেলার আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ মোশারোফ হোসেন জানান, শনিবার বেলা ১১টায় চাটমোহর উপজেলার বালুচর মাঠে মরহুমের প্রথম জানাযা নামাজ অনুষ্ঠিত হবে। সেখান থেকে মরদেহ নেয়া হবে পাবনা জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে। সেখানে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধাঞ্জলি শেষে পাবনা পুলিশ লাইন মাঠে দুপুর ২টায় দ্বিতীয় ও শেষ জানাযা নামাজ অনুষ্ঠিত হবে। জানাযা নামাজের আগে রাষ্ট্রীয় মর্যাদা গার্ড অব অনার প্রদান করা হবে।

উল্লেখ্য, পাবনার সদর উপজেলার দাপুনিয়া ইউনিয়নের ভাঁজপাড়া গ্রামে ১৯৩৬ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন ওয়াজি উদ্দিন খান। ভূট্টা আন্দোলন, গণঅভ্যূত্থান ও মহান মুক্তিযুদ্ধে তার ভূমিকা ছিল অনন্য। ১৯৭২ সালে তিনি পাবনা জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৮০ সালে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে এখনও পর্যন্ত উক্ত পদে দায়িত্ব পালন করছেন। দীর্ঘ ৫০ বছরে যতবার শ্রমিক ফেডারেশনের কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়েছে এই বর্ষিয়ান শ্রমিক নেতাকে সম্মান করে সভাপতি নির্বাচিত করেছেন শ্রমিক নেতারা। পাবনা জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন দীর্ঘ ২৫ বছর। ১৯৮৬ এবং ১৯৯৬ সালে ওয়াজি উদ্দিন খান পাবনা-৩ (চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, ফরিদপুর) আসনে দুইবার জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

আজ শনিবার সকাল ১১ টায় পাবনা চাটমোহরের ঐতিহাসিক বালুচর মাঠে বর্ষিয়ান এই শ্রমিক নেতার প্রথম জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হবে। বেলা ১২ টায় পাবনা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সামনে সর্বসাধারনের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য তার মৃতদেহ আনা হবে। যোহরের নামাজের পরে দুপুর দুইটায় পাবনা পুলিশ লাইন মাঠে রাষ্ট্রিয় সম্মানের মধ্যদিয়ে দ্বিতীয় জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হবে বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে। পরে আরিফপুর কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

ভূট্টা আন্দোলন, ৬৯ এর গণঅভ্যূত্থান ও মহান মুক্তিযুদ্ধে তার ছিল উল্লেখ করার মতো ভূমিকা। পাবনা জেলার সদর থানার দাপুনিয়া ইউনিয়নের ভাঁজপাড়া গ্রামে ১৯৩৬ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন ওয়াজি উদ্দিন খান। ১৯৭২ সালে তিনি পাবনা জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৮০ সালে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে এখনও পর্যন্ত উক্ত পদে দায়িত্ব পালন করছেন। দীর্ঘ ২৫ বছর দায়িত্ব পালন করেন পাবনা জেলাআওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে।

১৯৮৬ এবং ১৯৯৬ সালে জননেতা ওয়াজি উদ্দিন খান পাবনা-৩ (চাটমোহর, ভাঙ্গুড়া, ফরিদপুর) আসনে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৮২ সাল থেকে ১৯৯১ সাল পর্যন্ত তিনি রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি ও পাবনা ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ পরিবার পরিকল্পনা সমিতি (এফপিএবি) এর জাতীয় পরিষদের সভাপতি নির্বাচিত হন ১৯৯৬ সালে।

এফপিএবি এর আজীবন সদস্য ওয়াজী উদ্দিন খান ১৯৮২ সাল থেকে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত উক্ত সমিতির পাবনা শাখার সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭২ সাল থেকে ১৯৪ সাল পর্যন্ত পাবনা জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন কালে জেলার ক্রীড়া ক্ষেত্রকে উজ্জীবিত করে রাখতে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখেন। ১৯৭৯ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত অন্নদা গোবিন্দ পাবলিক লাইব্রেরীর সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। তার মৃত্যুতে আওয়ামীলীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্কয়ার টয়লেট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অঞ্জন চৌধুরী পিন্টু, গোলাম ফারুক প্রিন্স এমপি, নাদিরা ইয়াসমিন জলি এমপি, শাজাহান খান এমপি, পাবনা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রেজাউল রহিম লাল, বিএনপি চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, পাবনা চেম্বারের সিনিয়র সহসভাপতি ও জেলা যুবলীগ আহবায়ক আলী মর্তুজা বিশ্বাস সনি, পাবনা চেম্বারের সিনিয়র সহসভাপতি ও জেলা যুবলীগ আহবায়ক আলী মর্তুজা বিশ্বাস সনি, সহসভাপতি ফোরকান রেজা বিশ্বাস, পরিচালক জাহিদ হোসেন জামিম, পাবনা জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক শহিদুল হক মানিক, ক্যাব সভাপতি এবিএম ফজলুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক এসএম মাহবুব আলম, জেলা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশান সভাপতি আবুল কালাম আজাদসহ বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *