ব্রণের সমস্যা? ঘরেই রয়েছে সমাধান

লাইফস্টাইল: পরিণত বয়সে কমবেশি অনেকেই ব্রণের শিকার হোন। সাধারণত ১৩ থেকে ১৯ বছর বয়সী ছেলে-মেয়েদের ক্ষেত্রে ব্রণ একটি সাধারণ অসুখ। তবে যেকোনো বয়সে ব্রণ হতে পারে।

ব্রণ বিভিন্ন রকম হতে পারে। ছোট ছোট গোল ফুসকুড়ির মতো, লালচে ছোট ছোট গোটা, আবার পুজপূর্ণ বড় বড় চাকাও হতে পারে। ব্রণ খুব যন্ত্রণাদায়ক। ব্রণের কারণে ত্বকে ছিদ্র দেখা দিতে পারে। কারো কারো মুখে ব্রণের তীব্রতা বেশি থাকলে মুখের ত্বক এবড়ো-থেবড়ো দেখায়। ব্রণে বেশি হাত দিয়ে খোঁচাখুঁচি করলে সেখানে কালো দাগ সৃষ্টি হয়।
যতই যা করা হোক না কেন, কখনই পুরোপুরি সারানো যায় না ব্রণ। ফলে বারবার ফিরে আসে ব্রণের যন্ত্রণা। কিন্তু ঘরোয়া কিছু উপাদান ব্যবহার করে ত্বকের এই রোগের চিকিৎসা সম্ভব। চলুন জেনে নিই সেসব উপাদান কী কী ও তার ব্যবহারÑ
আলু

সবজির ঝুড়িতে থাকে আলু। রান্নার কাজে সবচেয়ে বেশি ব্যবহার আলুর। আলু ছাড়া যেন একটি দিনও চলে না। সেই আলুতেই রয়েছে ব্রণের সমস্যা সমাধানের উপায়। আলু মানেই কার্বোহাইড্রেট আর অতিরিক্ত ক্যালরি- তা নয়। আলুর খোসায় আছে ভিটামিন ‘এ’, পটাশিয়াম আয়রন, অ্যান্টি-অক্সাইড, ফাইবারসহ প্রচুর পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট। আলুর মধ্যে আছে প্রদাহজনিত সমস্যা নিবারণের ক্ষমতা। ফলে ত্বকে কোনোরকম জ¦ালা, পোড়া বা কোনোরকমের সংক্রমণ হলে তা সারাতে আলু দারুণ কাজ দেয়।

লেবুর রস
খাবার টেবিলে এক টুকরো লেবু না হলে খাবার যেন হজমই হয় না। সেই লেবুতেই হবে ব্রণ দূর। লেবুর মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যাসিড বা ক্ষার জাতীয় উপাদান। ফলে এটি প্রাকৃতিক ক্লিঞ্জার হিসাবে কাজ করে। সূর্যের তাপে ক্ষতিগ্রস্ত ত্বক থেকে পোড়া ছোপ ছোপ দাগ যেমন দূর করতে পারে, তেমনই ত্বকের রোমগ্রন্থির মুখ উন্মুক্ত করে দিতেও সাহায্য করে লেবুর রস। লেবুর রস একটি প্রাকৃতিক অ্যাস্ট্রিঞ্জেন এবং এতে প্রচুর পরিমাণে জীবাণুনাশক উপাদান উপস্থিত রয়েছে।

টমেটো
সবজির ঝুড়িতে থাকা আরেকটি সবজি টমেটো। তা দিয়েই সমাধান পেতে পারেন ব্রণ সমস্যার। ত্বক এবং চুলের যতেœ টমাটোর জুড়ি মেলা ভার। কারণ টমাটোর মধ্যে আছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, খনিজ উপাদান এবং ভিটামিন। এই উপাদানগুলো ত্বককে আর্দ্র রাখে। ফলে ব্রণের প্রকোপ কমাতে সাহায্য করে। সেইসাথে রক্ত চলাচলের উন্নতি ঘটায়, লোহিত রক্ত কণিকার পরিমাণ বৃদ্ধি করে, কোলেস্টেরলের সমস্যা দূর করে এবং হজমশক্তি বৃদ্ধি করে।

হলুদ
ত্বকের যে কোনো সমস্যা সমাধানে হলুদের ব্যবহার অনস্বীকার্য। মনে রাখতে হবে যে, আমাদের ত্বকের ক্ষতির জন্য দায়ী থাকে বেশ কয়েক রকম আণুবীক্ষণিক জীবাণু। এসব জীবাণু দূর করে ত্বককে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে হলুদ। ত্বকের অতিরিক্ত তেল শোষণ করতে পারে হলুদ। ফলে ব্রণ সারতে সময় নেয় না। হলুদে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা ত্বককে উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে।

বরফ
ফ্রিজ খুললেই বরফ। সহজলভ্য একটি জিনিস। সেই বরফেই হবে ব্রণের চিকিৎসা। বরফ কতটা ঠা-া, সেটা নিশ্চয় কাউকে বুঝিয়ে বলতে হবে না। এর এই অতি ঠা-া চরিত্রই নানা ধরনের ত্বকের রোগ সারাতে সাহায্য করে। আসলে বরফ ত্বকের রক্তনালীকে সংকুচিত হতে সাহায্য করে। ফলে প্রদাহজনিত সমস্যা হতে পারে না। অন্যদিকে বরফ ত্বককে ঠা-া রাখে বলে চামড়া ফেটে যাওয়া বা ফুলে ওঠার মতো সমস্যা হতে দেয় না।

বেকিং সোডা
রান্না ঘরে মশলার তাকেই থাকে বেকিং সোডা। ব্রণ সারিয়ে তুলতে দারুণভাবে কাজে দেয় বেকিং সোডা। এমনকি ভবিষ্যতে যাতে ব্রণ ফিরে আসতে না পারে তারও ব্যবস্থা করে বেকিং সোডা। এছাড়াও কোনো কারণে ত্বকে প্রদাহজনিত সমস্যা হলে তারও সমাধান করে বেকিং সোডা। ব্রণ শুকিয়ে গেলে দাগ হয়ে বসে যায় ত্বকে। এই সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে বেকিং সোডা।

ভিনেগার
আজকাল বেশ পরিচিত একটি নাম অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার। অনেকেই কিনে আনেন, আবার অনেকেই বানিয়ে রাখেন ঘরে। অনেকেই জানেন, সাধারণত রান্নায় ব্যবহার হয় আপেল সাইডার ভিনেগার। তবে শুধু রান্নার ক্ষেত্রেই নয়, আপেল সাইডার ভিনিগারের উপকারিতা অনেক। ব্রণ এবং ফুসকুড়ির মতো সমস্যাকে খুব সহজেই সারিয়ে তুলতে পারে আপেল সাইডার ভিনিগার। কারণ এর মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে জীবাণুনাশক উপাদান। সেইসাথে থাকে ম্যালিক অ্যাসিড, যা প্রায় সব ধরনের জীবাণু এবং ছত্রাকের সঙ্গে লড়তে পারে। ফলে ত্বকে ব্রণের মতো সমস্যার সমাধান হয়।

টুথপেস্ট
ঘুম থেকে উঠেই যা খুঁজতে হয় তা হলো টুথপেস্ট। নিত্যদিনের সঙ্গি বেসিনে থাকা টুথপেস্ট দিয়ে করে ফেলুন ব্রণের চিকিৎসা। কি অবাক হচ্ছেন? ত্বকের নানা সমস্যা সমাধানে দারুণ কাজ করে টুথপেস্ট। এর কারণ হলো এতে থাকে সিলিকা নামক একটি উপাদান, যা স্কিনের তৈলাক্ত ভাব দূর করতে সাহায্য করে। ফলে ব্রণের প্রকোপ কমতে সময় লাগে না। তবে মনে রাখতে হবে, হাতে গোনা মাত্র কয়েকটি টুথপেস্টেই এই সিলিকা নামক উপাদান থাকে। তাই ব্যবহার করার আগে টুথপেস্টের উপাদানগুলো দেখে নিন।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *