রেলমন্ত্রীর আত্মীয়কে জরিমানা করায় সাময়িক বরখাস্ত হলেন টিটিই!

নিজস্ব প্রতিবেদক, পাবনা : বিনা টিকিটধারী তিন যাত্রীর কাছ থেকে রেলওয়ের প্রচলিত নিয়মানুযায়ী জরিমানাসহ ভাড়া আদায় করায় চাকরি থেকে বরখাস্ত হয়েছেন টিটিই।
রেলমন্ত্রীর আত্মীয়’ পরিচয়ে বিনা টিকিটের তিন ট্রেন যাত্রীর সংগে ‘অসদাচার’ করার দায়ে ঈশ্বরদীর ভ্রাম্যমান টিকিট পরীক্ষক বা টিটিই’ শফিকুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্তের এই শাস্তি দেয়া হয়।
বরখাস্তের বিষয়টি মুঠোফোনে নিশ্চিত করেছেন রেলওয়ের পাকশীর ডিসিও নাসির উদ্দিন।
‘রেলমন্ত্রী’র আত্মীয়ের সাথে এই ঘটনা ঘটার কয়েক ঘন্টা পর বৃহস্পতিবার অপরাহ্নে ঈশ্বরদীর পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে বানিজ্যিক কর্মকর্তা (ডিসিও) নাসির উদ্দিনের নির্দেশে তাঁকে মুঠোফোনে চাকুরি থেকে বরখাস্তের আদেশ জানানো হয়। শুক্রবার থেকে কার্যকর হয়েছে এ আদেশ।
জানা যায়, বরখাস্ত হওয়া টিটিই শফিকুল ইসলাম রেলওয়ে জংশন স্টেশন ঈশ্বরদীর টিটিই হেডকোয়ার্টারের সঙ্গে যুক্ত। ঘটনার রাতে টিটিই শফিকুল ইসলাম ঢাকাগামী আন্তঃনগর সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনে কর্তব্যরত ছিলেন। আবার ট্রেনে ডিউটিরত অবস্থায়ই তিনি বরখাস্তের আদেশটি মুঠোফোনে জানতে পারেন।
রেলের একাধিক সূত্রে জানা গেছে, ঢাকাগামী আন্তঃনগর সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনে ৫ এপ্রিল দিবাগত রাতে ঈশ্বরদী জংশন স্টেশন থেকে তিনযাত্রী বিনা টিকিটে এসি কেবিনে চেপে বসেন। এসময় ট্রেনের কর্তব্যরত টিটিই শফিকুল ইসলাম তাদের নিকট টিকিট দেখতে চাইলে তারা রেলমন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয় দেন। টিটিই বিষয়টি পাকশী বিভাগীয় রেলের সহকারী বানিজ্যিক কর্মকর্তা (এসিও) নুরুল আলমের সঙ্গে আলাপ করলে তিনি সর্বনিম্ন ভাড়া নিয়ে টিকিট কাটার পরামর্শ দেন। এসিও’র পরামর্শ অনুযায়ী টিটিই শফিকুল ইসলাম ওই তিন ট্রেনযাত্রীকে এসি টিকিটের পরিবর্তে মোট ১০৫০ টাকায় জরিমানাসহ সুলভ শ্রেণির নন এসি কোচে সাধারণ আসনের টিকিট বানিয়ে দেন। এসময় ট্রেনে কর্তব্যরত এ্যাটেনডেন্টসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।
সূত্র জানায়, ওই তিন যাত্রী তাৎক্ষনিকভাবে ট্রেনে লিখিত কোন অভিযোগ না করলেও তারা ঢাকায় পৌঁছে রেলের উর্ধতন কর্মকর্তাদের নিকট টিটিই শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ‘অসদাচরণ’ করার অভিযোগ করেন। সেই অভিযোগ পেয়ে পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে বানিজ্যিক কর্মকর্তা (ডিসিও) নাসির উদ্দিন সংশ্লিষ্ট টিটিইকে সাময়িক বরখাস্তের আদেশ দেন।
বরখাস্ত আদেশের বিষয়টি ঈশ্বরদীর টিটিই হেডকোয়ার্টারের ভারপ্রাপ্ত সিনিয়র টিটিই ইন্সপেক্টর মোঃ বরতুল্লাহ আলামিন মুঠোফোনে টিটিই শফিকুল ইসলামকে অবহিত করেন। সেসময় তিনি সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনে ডিউটিরত ছিলেন।
পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে বানিজ্যিক কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন, বলেন, “লিখিত অভিযোগ পাইনি। তবে সুন্দরবন ট্রেনে বিনা টিকিটধারী তিন ট্রেনযাত্রীর সঙ্গে কর্তব্যরত টিটিই অসদাচরণ করেছেন বলে তারা রেলওয়ের মহাপরিচালকসহ উর্ধতন কর্মকর্তাদের নিকট মুঠোফোনে অভিযোগ দেন। বিষয়টি আমাকেও অবহিত করা হয়। ওই অভিযোগের প্রেক্ষিতে টিটিই শফিকুল ইসলামকে তাঁর চাকুরী থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।
ঘটনা সম্পর্কে শফিকুল ইসলাম জানান, ‘বরখাস্তের বিষয়টি আমি ট্রেনে ডিউটিরত অবস্থায় মোবাইল ফোনে জানতে পেরেছি, এ কারণে শুক্রবার থেকে ডিউটিতে যাওয়া হয়নি। তিনি বলেন, ঈশ্বরদী থেকে অল্পবয়সী তিন ট্রেনযাত্রী রেলমন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয়ে সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেনের এসি কেবিনে ওঠেন।
তিনি বলেন, মন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয় দেওয়ায় আমি সম্মান দেখিয়ে এসিও স্যারের পরামর্শে এসির টিকিট না কেটে সুলভ শ্রেণির নন এসি কোচে সাধারণ আসনের বানিয়ে দেই। আমি তো তাদের সঙ্গে কোনরকম অসদাচরণ করিনি। তিনি আরও বলেন, বরখাস্তের বিষয়টি জানার পর তিনি পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে ম্যানেজারসহ রেলের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের অবহিত করেছেন।
Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *