পাবিপ্রবি শিক্ষক সমিতি নির্বাচন নিয়ে ভিসির বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক, পাবনা : পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে শিক্ষকদের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলরের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ এনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ নীল দলের প্রার্থীরা সংবাদ সম্মেলন করেছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে পাবনা প্রেসক্লাব মিলনায়নে তারা এই সংবাদ সম্মেলন করেন।
সংবাদ সম্মেলনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ নীল দলের সভাপতি প্রার্থী ড. হাসিবুর রহমান লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। লিখিত বক্তবে তিনি জানান, ২৩ জানুয়ারী পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে দুইটি প্যানেল অংশ গ্রহন করছেন।
নীল দলের সভাপতি প্রার্থী ড. হাসিবুর রহমান লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করে বলেন, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর ড. রুস্তম আলী ফরাজী নির্বাচনকে প্রভাবিত করছেন। ভিসি একটি প্যানেলের পক্ষ নিয়ে অপর প্যানেলের প্রার্থী ও সাধারন শিক্ষকদের ভয়ভীতি প্রদর্শন করছেন। ভিসির নগ্ন হস্তক্ষেপের কারনে শিক্ষকদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। শিক্ষক সমিতির নির্বাচনকে সুষ্ঠু শান্তিপূর্ণ ভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে ভাইস চ্যান্সেলরকে নিরপেক্ষ থাকার আহবানও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে। একজন ভিসি সরাসরি ফোন দিয়ে ডেকে নিয়ে শিক্ষকদের আপগ্রেডেশন বন্ধ করাসহ বিভিন্ন ভাবে হুমকী প্রদর্শন করা মোটেও উচিত নয় বলেও জানান তারা। এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যম্পাসের সুষ্ঠু পরিবেশ বিঘœ হলে এর দায়ভার ভিসি স্যারকেই বহন করতে হবে বলেও জানান তারা। একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি সর্বোচ্চ অভিভাবক হিসেবে তার নিরপেক্ষ ভুমিকা আমরা সর্বদা প্রত্যাশা করি।
প্রসঙ্গত, ২৩ জানুয়ারী পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এতে দুটি প্যানেল অংশ গ্রহন করেছেন। মোট ভোটার সংখ্যা একশত। সংবাদ সম্মেলনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ নীল দল প্যানেলের সকল প্রার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে এই সংবাদ সম্মেলন নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তরের সহকারী পরিচালক ফারুক হোসেন চৌধুরী স্বাক্ষরিত ও জনসংযোগ কর্মকর্তা সঙ্গীতা সিদ্দিকীর মেইল থেকে প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানান, সংবাদ সম্মেলনের বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নজরে এসেছে। এ ধরনের সংবাদ সম্মেলনে ভাইস চ্যান্সেলরের বিরুদ্ধে করা অভিযোগ সম্পূর্ণরূপে প্রত্যাখান করে এর প্রতিবাদ জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে ভাইস-চ্যান্সেলরের বিরুদ্ধে শিক্ষক সমিতির নির্বাচন নিয়ে যেসকল অভিযোগ করা হয়েছে তা সম্পূর্ণরূপে ভিত্তিহীন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করাসহ শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বিনষ্ট করার পাশাপাশি ভাইস-চ্যান্সেলর মহোদয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার জন্যই একটি গোষ্ঠীর নোংরা পদক্ষেপের অংশ হিসেবে এই সংবাদ সম্মেলন। শিক্ষক সমিতির নির্বাচন পুরোপুরি শিক্ষকদের নিজস্ব বিষয়। এখানে ভাইস-চ্যান্সেলর মহোদয়ের হস্তক্ষেপের কোন সুযোগ নাই। তিনি সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

Spread the love

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *